ওয়েব ডেস্ক নভেম্বর ৪,২০২০: আমি মহারাষ্ট্র পুলিশকে সত্যিই ধন্যবাদ জানাতে চাই যে আজকের এই দিনটি আমার জীবনে এনে দেওয়ার জন্য।দু’বছর ধরে আমি ধৈর্য্য ধরে ছিলাম। যদিও আমি জানি যে, আমার স্বামী ও শাশুড়ি আর ফিরে আসবেন না কিন্তু তাঁরা আমার জীবনে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।” আজ সকালে রিপাবলিক টিভির কর্ণধার অর্ণব গোস্বামীর গ্রেপ্তারীর পর এভাবেই নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করলেন প্রয়াত অন্বয় নায়েকের স্ত্রী অক্ষীতা নায়েক।

অক্ষীতা নায়েক দুবছর আগে তাঁর ৫৩ বছর বয়সী স্বামী অন্বয় নায়েক ও শাশুড়ি কুমুদ নায়েকের আত্মহত্যার জন্য অর্ণব গোস্বামীকে দায়ী করেছিলেন।

অর্ণব গোস্বামীর রিপাবলিক টিভির অফিসের ইন্টিরিয়র ডিজাইনার ছিলেন অন্বয় নায়েক। অর্ণব গোস্বামী প্রাপ্য টাকা না দেওয়ায় সুইসাইড নোটে তাঁর ও তাঁর মায়ের মৃত্যুর জন্য অর্ণব গোস্বামীকে দায়ী করেন অন্বয় নায়েক।কিন্তু দেবেন্দ্র ফড়নবিশের নেতৃত্বাধীন মহারাষ্ট্রের তৎকালীন বিজেপি সরকারের পুলিশ এ নিয়ে অর্ণব গোস্বামীর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি। দুবছরের অসংখ্য ঢেউ মুম্বাইয়ের তটে আছড়ে পড়েছে।সরকারও বদলেছে।

বদলেছে অর্ণব গোস্বামীর ভূমিকাও। ভয়াবহ ভাবে আক্রমণাত্মক হয়ে উঠেছে তাঁর সাংবাদিকতার পদ্ধতি। অর্ণবের বিজেপির হয়ে উগ্র হিন্দুত্ববাদী প্রচারের জন্য সমালোচনার ঝড় উঠেছে সারা দেশে।

এই পরিস্থিতিতে দুবছরের পুরো মামলায় অর্ণবের গ্রেপ্তার নিয়ে সরব হয়েছে অমিত শাহ, জেপি নাড্ডাসহ বিজেপির সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা।

অন্বয় নায়েকের স্ত্রী অক্ষীতা নায়েক আজ বলেন,আমার স্বামীর মৃত্যুর জন্য অর্ণব গোস্বামী দায়ী। প্রত‍্যেক ভারতীয়র কাছে আমার অনুরোধ কেউ ওঁর পাশে দাঁড়াবেন না। মহারাষ্ট্র পুলিশ সুবিচার করেছে।২০১৮ সালে অভিযোগ দায়েরের পর কেন কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি আমি জানি না। আমি আমার স্বামী এবং আমার শাশুড়িকে হারিয়েছি। মামলা দায়েরের পর থেকে আমরা অনেক কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে চলেছি। অনেক হুমকি ফোন পেয়েছি। পথেঘাটে আমাদের অনুসরণ করা হতো। আমি আমার স্বামীর জন্য ন্যায়বিচার চাই।”

তাঁর আরও অভিযোগ, এই মামলা বন্ধ করে দেওয়ার জন্য রায়গড়ের এসপি অনিল পারসেকর এবং আলিবাগ থানার সিনিয়র পুলিশ ইন্সপেক্টর সুরেশ ওয়ারদে বহু চেষ্টা করেছেন। ক্লোজ রিপোর্টে সই করার জন্য তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করা হত বলেও অভিযোগ করেন তিনি। তিনি বলেন, মহারাষ্ট্র পুলিশ সঠিক কাজ করেছে। কেউ ওনার পাশে দাঁড়াবেন না।

86