২৩/৯/২০২০,ওয়েবডেস্কঃ নতুন কৃষি বিল নিয়ে উত্তাল দেশ । কৃষি বিলের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে দেশজুড়ে কৃষকেরা। উত্তাল হয়েছে সংসদ। রাজ্যসভায় এই বিল নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে গিয়ে সাসপেন্ড হয়েছেন আট সাংসদ। পাল্টা বিরোধীরাও রাজ্যসভার অধিবেশন বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দেশের ১৮টি বিরোধী দল রাষ্ট্রপতিকে চিঠি লিখে ওই বিলে সাক্ষর না করার অনুরোধ করেছে। কিন্তু এবার শুধু বিরোধিতাই নয় এই বিলের বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ে নামতে চলেছে বাম শাসিত রাজ্য কেরল। কেরল সরকারের দাবি, ১৯৫৫ সালের আইন সংশোধন করে যা করা হয়েছে তা কৃষকদের স্বার্থ বিরোধী। নতুন এই কৃষি বিল রাজ্যের ক্ষমতাও খর্ব করবে। রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী ভি এস সুশীল কুমার সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, কৃষিকাজ, কৃষিবিদ্যা,গবেষণা, কৃষি ফসল রক্ষা রাজ্যের অধিকারের মধ্যে পড়ে। তিনি বলেন কেন্দ্র এই বিল নিয়ে রাজ্যগুলোর সাথে কোনরকম আলোচনা করেননি এই নতুন বিল ব্যবসায়ীদের পেট ভরানোর জন্য করা হয়েছে।মঙ্গলবার রাজ্যসভায় শেষ বিলটি পাস করিয়ে নেয় কেন্দ্র ঠিক অনেকটা যেন ফাঁকা মাঠে গোল করে নেওয়ার মতোই।এর ফলে ডাল, আলু, পেঁয়াজের মতো রোজকার প্রয়োজনীয় জিনিস অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের তালিকায় আর থাকল না। এর অর্থ হলো অত্যাবশ্যকীয় পণ্য না হওয়ার দরুন ওইসব পণ্য মজুতের ক্ষেত্রে কোনও সীমা থাকল না। অর্থাৎ ব্যবাসায়ী ও মজুতকারীরা সুবিধে পাবেন। সরকারের বক্তব্য অবশ্য ওইসব পণ্য উৎপাদন, সাপ্লাই ও মজুতের সীমার না থাকার ফলে কৃষকদের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থাও ওইসব পণ্যের ব্যবসার ক্ষেত্রে সুবিধে পাবে। পাশাপাশি আসবে বিদেশি বিনিয়োগও।

133