কৃষি বিল নিয়ে উত্তপ্ত রাজনৈতিক ময়দান। একদিকে ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামলো সরকার ।অন্য দিকে লোকসভা অধিবেশন বয়কটের পরেই সংসদে জরুরি বৈঠক করলো বিরোধীরা। অধীবেশনের পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় বিভিন্ন বিরোধী দলের সাংসদরা। কৃষি বিল ও রাজ্যসভার আট সাংসদকে বরখাস্তের প্রতিবাদে লোকসভাতেও কেন্দ্র বিরোধিতায় এদিন সরব হন বিরোধীরা। বিলটি ফিরিয়ে নেওয়ার দাবিতে শেষমেশ অধিবেশন বয়কট করেন বিরোধী সাংসদরা।

অধিবেশন বয়কটের পরেই এদিন সংসদ ভবনেই জরুরি বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেন বিরোধী সাংসদরা। কৃষি বিল নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বড়সড় আন্দোলনে নামার ভাবনায় বিরোধীরা।অন্যদিকে কৃষি বিল নিয়ে কৃষক বিদ্রোহের আঁচে এবার রক্ষনাত্মক কেন্দ্রের বিজেপি সরকার । কৃষি বিল নিয়ে দেশ জুড়ে কৃষকদের ক্ষোভের আঁচ অনুভব করেছে কেন্দ্র সরকার। ড্যামেজ কন্ট্রোলের জন্য আজ দেশের প্রধান প্রধান বিভিন্ন সংবাদ পত্রে পাতা জোড়া বিজ্ঞাপনে বোঝানোর চেষ্টা হয়েছে কৃষকরা যেমন ভাবছে বর্তমান বিলটি মোটেই ততটা কৃষক বিরোধী নয়।

এর আগে এদিন রাজ্যসভায় বিদ্রোহের আঁচ এসে পড়েছে লোকসভাতেও। মঙ্গলবার অধিবেশনের শুরু থেকে রাজ্যসভার আট সাংসদের বরখাস্ত হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সুর চড়ান কংগ্রেস-সহ বিরোধী দলের সাংসদরা।

এদিন, লোকসভার অধিবেশনের শুরুতেই কৃষি বিল ও রাজ্যসভার বিরোধী সাংসদদের বরখাস্তের প্রতিবাদে সরব হন কংগ্রেস-সহ বিরোধী দলগুলির সাংসদরা। লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী বলেন, ‘‘রাজ্যসভা ও লোকসভা দুই ভাইয়ের মতো। যদি একজনের বেদনা হয়, অন্যজনেরও উদ্বেগ বাড়ে। কৃষি বিল নিয়েই আমাদের আপত্তি। বিলটি ফিরিয়ে নিতে হবে। বিলটি ফিরিয়ে নেওয়ার আশ্বাস দিলে অধিবেশন চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের কোনও সমস্যা নেই।’’

যদিও বিরোধীদের আবেদনে সাড়া দেয়নি কেন্দ্র। শেষমেশ কংগ্রেসের নেতৃত্বে লোকসভার অধিবেশন বয়কটে করেন বিরোধী সাংসদরা।

29