জলপাইগুড়ি তে গিয়ে প্রকাশ্যে পুলিশকে পুজোয় চুড়ি উপহার দেওয়ার কথা জানালেন বিজেপি মহিলা মোর্চার রাজ্য সভাপতি অগ্নিমিত্রা পাল। জানা গেছে শুক্রবার সন্ধ্যায় শিলিগুড়ির কর্মসূচি শেষ করে রাজগঞ্জের নির্যাতিতা নাবালিকা ও তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যান তিনি।

সেখানেই তিনি পুলিশের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, “নিখোঁজ মেয়েকে খোঁজ করতে ঘুষ নিয়েছে পুলিস। সত্যি কথা সামনে আসায় নিজেদের অপদার্থতা ঢাকতে থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে সোমারু মহম্মদকে বয়ান বদল করতে বাধ্য করেছে পুলিস। তাই আমরা ঠিক করেছি এবার পুজোয় পুলিসকে চুড়ি উপহার দেব। আপাতত তারা সেই চুড়ি হাতে পরে বসে থাকুক। একুশ সালে আমরা ক্ষমতায় এলে চুড়ি খুলে নেব।”

এদিন তাঁর সাথে দেখা করেন রাজগঞ্জের নির্যাতিতার বাবা তথা ট্যাংরা পাড়ার বাসিন্দা সোমারু মহম্মদ। তিনি অভিযোগ করে বলেন, “গত জানুয়ারি মাস থেকে তাঁর মেয়ে নিখোঁজ। পুলিস তাঁর কাছ থেকে আট হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছে। কিন্তু এখোনও পর্যন্ত মেয়েকে উদ্ধার করে আনেনি।”

কিন্তু এরপর সেই রাতের মধ্যেই রহস্যজনকভাবে বিবৃতি বদল করে সোমারু মহম্মদ বলেন, “আমার মেয়ে নিখোঁজ। তাই আমার মাথা ঠিক নেই। আমি ভুল করে দুপুরে পুলিসকে ঘুষ দেওয়ার কথা বলেছিলাম। আমি কোনও ঘুষ দিইনি।” এই কথা বলা আমার ভুল হয়েছে বলে নতুন করে বিবৃতি দেন তিনি।এরপরই অগ্নিমিত্রা পাল অভিযোগ করেন “নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে থানায় তুলে নিয়ে গিয়ে সোমারু মহম্মদকে বয়ান বদল করতে বাধ্য করেছে পুলিশ।”

উল্লেখ্য শুক্রবার সন্ধ্যায় শিলিগুড়ির কর্মসূচি শেষ করে ফের জলপাইগুড়ি চলে আসেন অগ্নিমিত্রা।এরপর জেলা হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসাধীন নাবালিকার সঙ্গে দেখা করতে গেলে জানতে পারেন, দুপুরেই নাবালিকাকে স্থানীয় একটি হোমে নিয়ে গিয়েছে পুলিশ। এরপর তিনি অভিযোগ করেন ঘটনা আড়াল করতে পুলিশ লুকোচুরি খেলছে ।

10