এলিনা বাসু (রেখা )

আলসেমি মাখা ঘুমের ওড়নাটাকে এক ঝটকায় সরিয়ে ধড়ফরিয়ে উঠে বসল সনকা | পাশেই মাটিতে শুয়ে দিনমজুর স্বামী, দয়াল | ঘরের এক কোণে ছোট্ট চৌকিতে ঘুমোচ্ছে মেয়ে আর দু বছরের নাতি | দুজন-দুজনকে জড়িয়ে, নিশ্চিন্তে |একঘর ভালোবাসার সাথে একটা কষ্ট কষ্ট সুখ আর আনন্দের ওম জড়িয়ে বাইরে এলো সনকা |আজ কি কম কাজ তার ? জামাই আসছে যে আজ ! সনকার একটুকরো স্নেহমাখা উঠোন আর ঘরের পুরোটা জুড়েই দারিদ্র-যাপনের আলপনা আঁকা | যদিও সে আল্পনার নীল-কালো রংগুলি একটুও ছুঁতে পারে নি তাদের একমাত্র সন্তান লাভলীকে |

সরকারী স্কুলের মেধাবী ছাত্রী লাভলী খো-খোতেও যথেষ্ট ভালো ছিল | রানার কিংবা চেজার লাভলী মাঠে নামলেই শুরু হতো গুঞ্জন–“ওই দেখ ফেয়ার এন্ড লাভলী” |

সুন্দরী লাভলীর জন্য সুপাত্রের অভাব ছিল না | তাই মাধ্যমিকের আগেই তার রূপমুগ্ধ পাত্রের সাথে বড়লোক বাড়ির বধূ হয়ে ওঠে লাভলী |  সনকার সেই মেয়েকে নিয়ে যাবার জন্য জামাই আসছে আজ বহু প্রতীক্ষার পর | ভারী আনন্দের দিন আজ তাদের ! দ্রুত হাতে কাজ সারতে থাকে সনকা |

সন্ধ্যার আগেই আসে সেই কাঙ্খিত মুহুর্ত | স্বপ্ন সওদাগরের মতো এসে পৌঁছয় জামাই | হাজার ওয়াট খুশীর রোশনাই জ্বালিয়ে লাভলী বাবাকে জানাতে আসে সেকথা | হঠাৎই থমকে দাঁড়ায় সে |আধো-অন্ধকারেও অসতর্ক দয়ালের পেটের কাছে একটা কাটা দাগ দেখে জানতে চায় _” ওটা কিসের দাগ বাবা”? ধরা পড়ে যাওয়া অপরাধীর মতো মেয়ের দিকে তাকিয়ে থাকে দয়াল | কি করে বলবে সে __ তোর জন্য একমুঠো সুখ কিনে এনেছিরে আমার সামান্য একটা দাগের বিনিময়ে | 

বাইরে তখন প্রতিবেশীদের জটলায়  ফিসফাস ____পঞ্চাশ হাজার টাকার জন্য তো ওরা ফেলে রেখে গেছিল লাভলীকে; একবছর আগে | আজ আবার জামাই এলো যে !?

                            

14