প্রয়াত হলেন বিশিষ্ট সমাজসেবি ও রাজনীতিবীদ স্বামী অগ্নিবেশ। সেই সঙ্গে পরিসমাপ্তি ঘটল সংগ্রামী ইতিহাসের এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। শুক্রবার সন্ধ্যেয় কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট-এ তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮০ বছর। গত মঙ্গলবার শারীরিক অসুস্থতার জন্য তাঁকে নয়াদিল্লীর ইন্সটিটিউট অফ লিভার অ্যান্ড বিলিয়ারি সায়েন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত মঙ্গলবার হাসপাতালে ভর্তি হবার পরেই তাঁর মাল্টি অর্গান ফেলিওর হয়। তখন থেকেই তিনি লাইফ সাপোর্ট সিস্টেমে ছিলেন। এদিন সন্ধ্যে ৬টা নাগাদ আচমকাই তাঁর কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয়। এরপর সন্ধ্যে সাড়ে ৬টা নাগাদ তিনি মারা যান।

দীর্ঘদিনের রাজনীতিবিদ স্বামী অগ্নিবেশ প্রথম থেকেই দাস শ্রমিক প্রথার বিরোধিতা করে লড়াই চালিয়েছেন। দীর্ঘ সময় তিনি যুক্ত ছিলেন বন্ডেড লেবার লিবারেশন ফ্রন্টের সঙ্গে। ১৯৩৯ সালের ২১ সেপ্টেম্বর বর্তমান অন্ধ্রপ্রদেশ, ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সীর শ্রীকাকুকলমে তাঁর জন্ম।  তার প্রকৃত নাম ছিল ভেপা শ্যাম রাও একসময় অধ্যাপনা করেছেন কলকাতার সেন্ট জেভিয়ারস কলেজে। ১৯৭০ সালে তিনি আর্য সভা নামে রাজনৈতিক দল স্থাপন করেন। হরিয়ানার প্রাক্তন বিধায়ক এবং রাজ্য সরকারের মন্ত্রীসভার দায়িত্বও সামলেছেন তিনি। আন্না হাজারের ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে ভারত’ আন্দোলনেও সামিল হয়েছিলেন এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব।

গত ২০১৮ সালের জুলাই মাসে ঝাড়খন্ডের পাকুড় জেলায় বিজেপি-র যুব নেতাদের দ্বারা আক্রান্ত হন সমাজকর্মী স্বামী অগ্নিবেশ। চূড়ান্ত ভাবে হেনস্থা, শারীরিক নির্যাতনের পাশাপাশি বর্ষীয়ান এই সমাজকর্মীর জামাকাপড় ছিঁড়ে দেয় আক্রমণকারীরা। বিজেপি-র যুব নেতাদের সাথে RSS ও বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মীরাও এই ঘটনায় জড়িত ছিলো বলে অভিযোগ।

স্বামী অগ্নিবেশের মৃত্যুতে গভীর শোক ব্যক্ত করেছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি, সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সিতারাম ইয়েচুরি প্রমুখ ।

3