ছবি প্রতিকী

ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে দুই যুবক মিলে মুখ চাপা দিয়ে গণধর্ষণের অন্যতম অভিযুক্তের বাড়িতে ক্ষোভে ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দিল উত্তেজিত গ্রামবাসী। যদিও ঐ অভিযুক্ত এখনো পলাতক। ঘটনা দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার হাঁসখালি গ্রামে।

গত ২৯ শে আগস্ট রাতে ঘর থেকে বেরিয়ে শৌচাগারে যাওয়ার সময় ওত পেতে থাকা দুই যুবক অন্ধকারে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী এক নাবালিকা মেয়ের মুখ চেপে ধরে তাকে উঠোনের এক কোনে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। এই সময় গোঙানির শব্দ পেয়ে ঐ নাবালিকার বাবা বাইরে বেরিয়ে এসে ঘটনা চাক্ষুষ দেখে ফেলেন। তিনি চিৎকার করে উঠলে দুস্কৃতিরা পালিয়ে যাবার সময় তিনি দুস্কৃতিদের চিনে ফেলেন। সংজ্ঞাহীন অবস্থায় ঐ নাবালিক কে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরের দিন মেয়েটির বাবা দুই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে থানায় এফআইআর করলে পুলিশ মঙ্গল মন্ডল নামে এক অভিযুক্ত কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হলেও মূল পান্ডা বছর বিয়াল্লিশের বৈদ্যনাথ বিশ্বাস পালিয়ে যায়।

এদিকে সাতদিন হয়ে গেলেও বৈদ্যনাথ বিশ্বাস গ্রেফতার না হওয়ায় গ্রামে প্রবল উত্তেজনা ছড়ায়। উত্তেজিত জনতা গতকাল অভিযুক্ত বৈদ্যনাথ বিশ্বাসের বাড়ি আক্রমণ করে। প্রথমে বাড়িতে ব্যপক ভাঙচুর চালায়। পরে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এদিকে পুলিশ জানিয়েছে অভিযুক্তের খোঁজে ব্যাপক তল্লাশি চালানো হচ্ছে। শীঘ্রই তাকে গ্রেফতার করা হবে বলে পুলিশ আশ্বাস দিয়েছে। অন্যদিকে জানা গেছে নির্যাতিতা ঐ নাবালিকা এখনও অসুস্থ। তার চিকিৎসা চলছে। অশান্তি এড়াতে গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

7