১/৯/২০২০,ওয়েবডেস্কঃ

বিজেপি ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটের আগে ফেসবুকে ৪৪ টি পেজের তালিকা তুলে দিয়েছিল যেগুলো মূলত সবই বিজেপি বিরোধী ছিল বিজেপির পক্ষ থেকে ফেসবুকে অনুরোধ করা হয়েছিল এই পেজগুলোকে আড়াল করার জন্য

    ফেসবুকের কাছে বিদায় বিজেপির দাবি ছিল ওই পেজগুলো প্রত্যাশিত স্ট্যান্ডার্ড ভঙ্গ করেছে বাস্তবের সাথে সম্পর্ক নেই নাকি তাদের কারোরই সোমবার পর্যন্ত ৪৪ চটি পেজ ফেসবুক থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে

ওই ১৪ টি পেজের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পেজ গুলি হল ‘দ্যা ট্রুথ অফ গুজরাট’, ‘ উই হেট বিজেপি’, ‘ভিম আর্মি অফিশিয়াল একাউন্ট’ সাংবাদিক বিনোদ দুয়া আর রবীশ কুমারের সমর্থনে দু’‌টি পেজও বিজেপি–র অনুরোধে সরিয়ে দেওয়া হয় ফেসবুক থেকে। 

লোকসভা ভোটের পর আবার গত নভেম্বরে বিজেপি ফেসবুককে ১৭টি পেজ পুনঃস্থাপনের আর্জি জানায়। যেগুলো  আগে ডিলিট করা হয়েছিল। পাশাপাশি দু’‌টি দক্ষিণপন্থী পেজ যাতে ফেসবুক থেকে বিজ্ঞাপন বাবদ টাকা (‌‌রেভিনিউ)‌ পায়, সে ব্যবস্থা করতে বলে। ওই দু’‌টি পেজ হল ‘‌দ্য চৌপল’‌ এবং ‘‌ওপিইন্ডিয়া’‌। বিজেপির কথা মতন ওই 17th কে আবার ফেসবুকে ফিরিয়ে আনা হয় সংস্থার তরফে বিজেপি তথ্যপ্রযুক্তি শাখার প্রধান অমিত মালবিয়াকে জানানো হয়, ‘‌ভুল করে’‌ পেজগুলো সরানো হয়েছিল। 

এই নিয়ে ফেসবুক ইন্ডিয়ার কর্তা আঁখি দাস এবং শিবনাথ ঠাকরালের সঙ্গে কথা হয় মালবিয়ার। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে একটি ইমেলে মালবিয়া জানান, বিজেপি–র স্বেচ্ছাসেবকরা ‘আই সাপোর্ট নরেন্দ্র মোদি’ সহ কিছু পেজ চালান। ফেসবুক ওই পেজগুলিও ডিলিট করে দিতে পারেন বলে ভয় পাচ্ছেন তাঁরা। আগের একটি বৈঠকে যে বিজেপি–র সমর্থনকারী কিছু পেজকে আড়াল করা নিয়ে আলোচনা হয়েছিল, সেকথাও ইমেলে বলেন মালবিয়া।

অন্য দিকেআমেরিকার সংবাদ মাধ্যম ‘‌ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল’‌ দাবি করেছিল, ভারতে বিজেপি আর ফেসবুকের আঁতাত রয়েছে। বিজেপি নেতারা হিংসার পোস্ট ছড়ালেও তা এড়িয়ে যায় ফেসবুক। পক্ষপাতিত্ব করে। কারণ ভারতে ব্যবসার প্রসারই তাদের উদ্দেশ্য। এর পরই সোরগোল শুরু হয়। বিজেপি–র দিকে আঙুল তোলে কংগ্রেস সহ বিরোধী দলগুলো।আর এই নিয়েই রাজনীতি তোলপাড়। ফেসবুক নিয়েও উঠছে হাজারো প্রশ্ন।
 

11