তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পর প্রথম এসএসসি পরীক্ষা হয় ২০১২ সালে। এর চূড়ান্ত মেধাতালিকা প্রকাশ হয় ২০১৩ সালে সেপ্টেম্বরে। অভিযোগ ওঠে, এসএসসি কমিশন যে চূড়ান্ত মেধাতালিকা প্রকাশ করেন তা শূন্যপদের থেকে অনেক কম চাকরি প্রার্থীর নাম আছে। মেধাতালিকাভুক্ত সমস্ত প্রার্থীদের চাকরি দেওয়ার দাবি ওঠে। এছাড়া এসএসসি’র মাধ্যমে স্কুলগুলিতে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। মেরিট লিস্টে থেকেও চাকরি না পেয়ে কয়েক হাজার চাকরি প্রার্থী আন্দোলন, অনশন, আমরণ অনশন ইত্যাদি’র পথ বেছে নিয়েছিলেন। পাশাপাশি কলকাতা হাই কোর্টে আইনের দ্বারস্থ হয়েছেন বহু চাকরি প্রার্থী।

মামলার জল গড়িয়েছিল সু্প্রিম কোর্টেও। সেসময় কমিশন সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিয়ে জানিয়েছিল, প্যানেল থাকা ৩৬,১৪০ জন’কে চাকরিতে নিয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু চাকরি প্রার্থীরা তা মানতে চায়নি। এদিন সেই হলফনামার পরিপ্রেক্ষিতেই বিচারপতি জানিয়ে দেন, কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট চূড়ান্ত নিয়োগ তালিকা নয়।

রায়দানের সময় হাই কোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থা বলেন, “কম্বাইন্ড মেরিট লিস্ট চূড়ান্ত নিয়োগ তালিকা নয়। ৩৬ হাজার ১৪০ জনের তালিকা নিয়োগ তালিকা নয়।” নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে ক্যাগ রিপোর্ট যে অস্বচ্ছতার কথা বলা হয়েছিল তা কার্যত মেনে নিয়েছে আদালত। তবে তার সঙ্গে চাকরি প্রার্থীদের মামলার কোনও যোগ নেই বলেও জানিয়ে দেয় আদালত। তবে আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে ডিভিশনে বেঞ্চে যাচ্ছে বলে খবর।

10