ভালো লেগেছিল বলে কেবলমাত্র এলাকার এক উচ্চবর্ণের ব্যক্তির বাড়ি থেকে ফুল তুলেছিল ১৫ বছরের এক দলিত কিশোরী। শুধুমাত্র এই সামান্য ঘটনার জেরেই মেয়েটির গ্রামের ৪০টি দলিত পরিবারকে সামাজিকভাবে বয়কট করার ঘটনা ঘটেছে ওড়িশার ঢেঙ্কানল জেলায়। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরই দেশজুড়ে শুরু হয়েছে প্রচন্ড বিতর্ক ।স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মাসদুয়েক আগে ওড়িশার ঢেঙ্কানল জেলার কাঁতিয়কাটেনি গ্রামের এক কিশোরী স্থানীয় এক উচ্চবর্ণের ব্যক্তির বাড়ি থেকে একটি ফুল তোলে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পরই ওই গ্রামে বসবাসকারী দলিত পরিবারগুলির সঙ্গে উচ্চবর্ণের মানুষদের তুমুল গন্ডগোল শুরু হয়। এরপরই পঞ্চায়েতের সালিসি বৈঠক ডেকে ওই গ্রামের ৪০টি পরিবারকে দুই সপ্তাহ সামাজিকভাবে বয়কট করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন উচ্চবর্ণের মানুষরা। এমনকি যে কিশোরীটি ফুল তুলেছিল তার পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার ক্ষমা চাওয়া হলেও কোনও গুরুত্ব দেওয়া হয়নি।

এপ্রসঙ্গে ওই গ্রামের একটি দলিত পরিবারের সদস্য জানান, সামাজিকভাবে বয়কটের পর থেকেই গ্রামের ৪০টি দলিত পরিবারের মানুষদের সঙ্গে কেউ কথা বলছে না। কাজ করতে না দেওয়ার পাশাপাশি কোনও জিনিসও গ্রামের দোকান থেকে কিনতে দেওয়া হচ্ছে না। কারোর কিছু প্রয়োজন হলে পাঁচ কিলোমিটার দূর থেকে গিয়ে নিয়ে আসতে হচ্ছে। এলাকায় কোনও সামাজিক অনুষ্ঠানেও যোগ দিতে দেওয়া হচ্ছে না। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৭ আগস্ট ওই পরিবারগুলির পক্ষ থেকে স্থানীয় থানা ও জেলা পুলিশ আধিকারিকদের কাছে এই বিষয়ে অভিযোগ জানিয়ে একটি স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়েছে। তারপর থেকে গ্রামে দুইটি শান্তি বৈঠক হলেও এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনও মীমাংসা হয়নি। পুলিশের কাছে এবিষয়ে দলিত পরিবারগুলোর পক্ষ থেকে এফআইআর দায়ের করতে চাইলেও তারা রাজি হয়নি।

6