ওয়েব ডেস্ক,২৪/০৮/২০২০:কিছুদিন আগেই একবার আমফান আর নিম্নচাপের জেরে নাগাড়ে অবিশ্রান্ত বর্ষণের কারণে রাজ্যের একাধিক জেলা জলমগ্ন হয়ে পড়েছিল।কোনোরকমে করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই সেটা সামাল দিতে দিতেই আবার ঘনঘন নিম্নসাগরীয় নিম্নচাপের সতর্কবার্তায় চিন্তায় রাজ্য সরকার। তার মধ্যে আবহাওয়া দফতর আরও বৃষ্টির সতর্কবার্তা দিয়েছে। এই অবস্থায় পরিস্থিতি যাতে আরও খারাপ না হয়, তাই আগেভাগেই পদক্ষেপ করতে বিভিন্ন জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার জেলার প্রশাসনিক কর্তাদের নিয়ে বৈঠকে বসেন মমতা। সেখানেই এই নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

মমতা বলেন, “সব রাজ্যে বন্যার সমস্যা নেই। এ রাজ্যে আছে। তাই ডিভিসি থেকে জল ছাড়লে আগে থেকেই ব্যবস্থা নিতে হবে।” ঝা়ড়খণ্ড থেকে জল ছাড়লে কী কী পদক্ষেপ করতে হবে, এ দিন সেই প্রসঙ্গও তুলে ধরেন তিনি। রাজ্যের যে সব জেলা বন্যাপ্রবণ, সেই সব জেলা ঘুরে পরিস্থিতি অনুযায়ী পদক্ষেপ করতে হবে বলেও জেলার প্রশাসনিক কর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন মমতা। রাজ্যের রাস্তার পরিস্থিতি নিয়েও উষ্মা প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “IRBC টোল পাচ্ছে। তাদের এই বিষয়টি দেখা উচিত।”

প্রসঙ্গত ঘূর্ণিঝড়ের পরে বাঁধ মেরামত করা হলেও তার পরেও বাঁধ ভাঙছে কেন বৈঠকে সেই প্রশ্নও তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর প্রশ্ন, তা হলে কি তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে কাজের মানের দিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি? আসলে আমফানের পর ক্ষতিপূরণ নিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তা নিয়ে গোটা রাজ্য সরগরম। এ রকম পরিস্থিতি যাতে তৈরি না হয় সে দিকেও নজর রাখতে বলেছেন তিনি। ক্ষতিপূরণের প্রশ্নে উনি বলেন, “যত দ্রুত সম্ভব ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ দিতে হবে।” পাশাপাশি, নতুন যে তালিকা তৈরি হয়েছে, সেই অনুযায়ী ত্রাণ দিতেও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। আসলে ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়েই সব দিক থেকে সতর্ক পদক্ষেপ ফেলতে চাইছে শাসক দল।

39