ওয়েবডেস্ক,আগস্ট,২৩,২০২০: সুপ্রীম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি অবসর গ্রহণ করার পর রাজ্যসভার সদস্য হওয়া নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রচুর সমালোচনা হয়েছে। এবার আরো কয়েক ধাপ এগিয়ে কি তিনি এবার আসামে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হচ্ছেন? এমন সম্ভাবনার কথা শোনালেন আসামের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ।গুয়াহাটিতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে চাঞ্চল্যকর এই দাবি করলেন আসামের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ। উল্লেখ্য, আগামী বছরই বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আসামে।

গুয়াহাটিতে সংবাদমাধ্যমের সামনে তরুণ গগৈ বলেন, “বেশ কিছু বিশ্বস্ত সূত্রে আমি জানতে পেরেছি, বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী তালিকায় রঞ্জন গগৈয়ের নাম রয়েছে। আমার ধারণা আসামের পরবর্তী সম্ভাব‍্য মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে ওনার নাম ঘোষণা করা হতে পারে।”

কংগ্রেস নেতার কথায়, সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি যদি রাজ‍্যসভার সাংসদ হতে পারেন, তাহলে বিজেপির পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হতেও আপত্তি করবে না। তিনি বলেন, “রাজনীতিতে সবই হয়। অযোধ্যা রাম মন্দির মামলার রায় ঘোষণার পর থেকেই রঞ্জন গগৈয়ের ওপর অত‍্যন্ত সন্তুষ্ট বিজেপি। রাজনীতিতে প্রবেশ করে ধীরে ধীরে রাজ‍্যসভার মনোনয়ন গ্রহণ করলেন তিনি। কেন উনি রাজ‍্যসভার সদস‍্য পদ প্রত‍্যাখ‍্যান করলেন না? উনি সহজেই মানবাধিকার কমিশন বা এই জাতীয় কোনো সংস্থার চেয়ারম্যান হতে পারতেন। কিন্তু তা না করে উনি রাজনীতিতে প্রবেশ করলেন। ওনার রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা রয়েছে তাই উনি রাজ‍্যসভার মনোনয়ন গ্রহণ করেছেন।”

রাজ‍্যে বিজেপিকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করার জন্য বদরউদ্দিন আজমলের নেতৃত্বাধীন অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ), বাম এবং অন্যান্য আঞ্চলিক দলগুলিকে একসাথে যুক্ত হয়ে “মহাজোট” ‌গঠনের পরামর্শ দিয়েছেন রাজ‍্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন আগামী নির্বাচনে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে পরবর্তী সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হবেন না তিনি। দলের একজন উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করতে চান বলে জানান তিনি।

33