২৪/৮/২০২০,ওয়েবডেস্কঃসেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়ার দাবী অনুযায়ী মাত্র ৭৩ দিনের মধ্যেই ভারতের জনগন বিনামূল্যে করোনা ভাইরাসের টিকা পেতে পারেন।
সেরাম ইনস্টিটিউটের এক আধিকারিক জানিয়েছে , তাদের তৈরী কোভিড১৯ এর টিকা কোভিশিল্ডের উপর সমস্ত পরীক্ষার কাজ আগামী ৫৮দিনের মধ্যেই শেষ হতে চলেছে। তিনি আরো জানান হিউম্যান ট্রায়ালের প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপ সফল ভাবে শেষ হয়েছে। তৃতীয় পর্যায়ের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে শনিবার। মুম্বাই ,পুণে, আমেদাবাদ সহ ২০টি শহরের স্বেচ্ছা সেবকদের উপর এটি প্রয়োগ করা হয়েছে। আরো ২৯দিন পর দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে ১৬০০জন স্বেচ্ছা সেবকের উপর। তারও ১৫দিন পর জানা যাবে ফলাফল। তবে সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়ার তরফ থেকে টিকার উৎপাদন ও বন্টনের রূপরেখা চূড়ান্ত করে ফেলা হয়েছে।
কোভিশিল্ড তৈরীতে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও সুইডিশ সংস্থা অ্যাস্ট্রা জেনেকার সহযোগিতা পেয়েছে সেরাম ইনস্টিটিউট।ডিসিজিআই( ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া) চলতি মাসের গোড়াতেই দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ের হিউম্যান ট্রায়ালের ছাড়পত্র দিয়েছে ইনস্টিটিউটকে।
ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের ডিজি বলরাম ভার্গব জানিয়েছিলেন, ভারতে তৈরি দুটি সম্ভাব্য করোনা প্রতিষেধকের দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা শেষ। তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা শেষ হতে ৬ থেকে ৯ মাস লাগে।কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার চাইলে জরুরী ভিত্তিতে ছাড়পত্র দিতে পারে।সূত্রে খবর অনুযায়ী সম্ভাব্য টিকা দুটির একটি কোভিশিল্ড ও অন্যটি কোভ্যাক্সিন। ইনস্টিটিউট থেকে এক সূত্র জানিয়েছেন ইতিমধ্যেই অ্যাস্ট্রা জেনেকা থেকে ভারত সহ ৯৩টি দেশে কোভিশিল্ড বিক্রির রয়্যালটি কিনে নিয়েছে তারা। আগামী জুন মাসের মধ্যে ৬৮কোটি প্রতিষেধক সরবরাহের সরকারি নির্দেশ তারা পেয়েছে। ভারতীয়দের নিখরচায় দ্রুত টিকার ব্যবস্থা করার জন্যই এই পদক্ষেপ বলে তারা জানিয়েছেন।

24