করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই বাংলাদেশ ও বিহার সংলগ্ন প্রান্তিক জেলা হিসেবে উত্তর দিনাজপুরের অবস্থান যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ন। তার মধ্যেই একদিকে পরিযায়ী শ্রমিক ও জেলাবাসীর এক অংশের মানুষের উদাসীনতার ফলে মে জুন মাস থেকেই জেলার সংক্রমণের গ্রাফ চড়তে থাকে হু হু করে। পরিস্থিতি দেখে জুলাইয়ের শুরুতেই গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা উঠে আসতে থাকে বিভিন্ন স্তর থেকে। একদিকে আক্রান্তের সংখ্যা বহুলাংশে বৃদ্ধি অন্যদিকে অপ্রতুল সরকারি পরিকাঠামো নিয়ে জেরবার হতে হয় আক্রান্ত মানুষ এবং তাঁদের পরিবারকে। বিভিন্ন স্তরে জমে উঠতে থাকে ক্ষোভ। এছাড়াও আক্রান্তের তথ্য দেওয়া নিয়েও শুরু হয় চাপানউতোর। মাঝে সেফ হোমে পরিষেবার ক্ষেত্রে অব্যবস্থার কারণে বিক্ষোভ ও দেখান করোনা আক্রান্ত রোগীরা। যদিও পুরো সময়টাতেই সামনে থেকে পুরো লড়াইটার নেতৃত্ব দেন উত্তর দিনাজপুর জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ রবীন্দ্রনাথ প্রধান। বিগত পাঁচ মাস ধরে নিরলস পরিশ্রমে জেলার করোনা যুদ্ধের হাল ধরে রাখেন উনি।

কিন্তু আজ রাজ্য সরকারের এক নির্দেশনামায় তাঁকে বদলি করা হয়। জানা গেছে, রবীন্দ্রনাথ বাবুকে রামপুরহাটের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক পদে বদলি করা হলো। যদিও এই নির্দেশ জেলায় পৌঁছনোর পর চাঞ্চল্য ছড়ায় বিভিন্ন মহলে। করোনা যুদ্ধের মধ্যবর্তী সময়ে সমস্ত বিষয়ে ওয়াকিবহাল এরকম একজন পুরোধা যোদ্ধা কে তড়িঘড়ি বদলির সিদ্ধান্ত আদতেই কেন সে নিয়ে জনমানসে কৌতূহলী প্রশ্ন ও ছড়ায়। তবে কি এক্সপেক্টেড লেভেলের পারমরম্যান্স না করতে পেরেই এই বদলি নাকি সত্যি ই রুটিন ট্রান্সফার,সে নিয়ে জল্পনা বাড়ছে। যদিও এই আবহের মাঝপথে জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য অধিকারিকের ট্রান্সফার কাজের গতিকে কিছুটা হলেও শ্লথ করে দিতে পারে বলে অনেকের আশঙ্কা।

47