এখনো গোটা বিশ্ব জুড়েই দাপট অব্যাহত করোনার । এখনও জারি মৃত্যুমিছিল। বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। তবে এসবের মধ্যেই ফের স্বাভাবিক ছন্দে ফেরার চেষ্টায় গোটা বিশ্ব। আর তাই করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ফের বাইশ গজে ফিরেছিল ক্রিকেট । ইংল্যান্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ দিয়ে ফের শুরু হয়েছিল ব্যাট–বলের লড়াই। আর সেই লড়াইয়ে শেষপর্যন্ত বাজিমাত করলেন ইংরেজরাই। ১–১ থাকা সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ ম্যাচ শেষ হল মাত্র তিনদিনে। ক্যারিবিয়ানদের ২৬৯ রানে হারিয়ে সহজেই ম্যাচ এবং সিরিজ পকেটস্থ করলেন বেন স্টোকসরা ।
ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দুই দলের কাছেই এই টেস্ট সিরিজের গুরুত্ব ছিল আলাদা। ক্যারিবিয়ানদের কাছে এটা ছিল ট্রফি ধরে রাখার লড়াই। আর ইংল্যান্ডের কাছে ঘরের মাঠে সম্মানের। এমন পরিস্থিতিতে প্রথম ম্যাচেই দেশের মাটিতে মুখ থুবড়ে পড়ায় মাথা নত হয়েছিল বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। সেখান থেকেই দ্বিতীয় টেস্টে পালটা লড়াই করে জয় পায় ইংল্যান্ড। দলে ফিরেই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছিলেন স্টুয়ার্ট ব্রড । আর এই তৃতীয় টেস্টেও জয়ের অন্যতম নায়ক তিনি। গোটা ম্যাচে দশ উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি দ্বিতীয় ইনিংসে ‌কার্লোস ব্রেথওয়েট কে আউট করে টেস্টে ৫০০ উইকেট নেওয়ার নজিরও গড়ে ফেললেন ডানহাতি এই পেসার। আসলে এই ম্যাচে শুরু থেকেই নিজেদের আধিপত্য বজায় রেখেছিল ইংরেজরা। ব্যাটে–বলে তাঁদের কোনওপ্রকার চ্যালেঞ্জই ছুড়তে পারেননি ক্যারিবিয়ানরা। প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের করা ৩৬৯ রানের জবাবে ১৯৭ রানে গুটিয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংস। ছ’‌উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রড। এদিকে, দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র দু’‌উইকেট হারিয়ে ২২৬ রান তুলে ডিক্লেয়ার দেয় ইংল্যান্ড। ততক্ষণে স্কোরবোর্ডে জয়ের জন্য লক্ষ্যমাত্রা ৩৯৯। উলটোদিকে বিধ্বংসী মেজাজে ইংরেজ পেসাররা। ফল যা হওয়ার তাই হল। মাত্র ১২৯ রানেই অলআউট হয়ে গেলেন ‌জেসন হোল্ডাররা‌। বৃষ্টিও ওয়েস্ট ইন্ডিজের হার বাঁচাতে পারল না। ইংরেজ বোলারদের মধ্যে ক্রিস ওকস পাঁচটি এবং ব্রড চারটি উইকেট নেন। জেমস অ্যান্ডারসন ও জোফ্রা আর্চার কোনও উইকেট না পেলেও যোগ্যসঙ্গত দেন। ক্যারিবিয়ানদের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেন শাই হোপ (‌৩১)।‌

28