১৫/৭/২০২০,ওয়েবডেস্কঃ করণা রোগীর পরিবারের মাথায় ওষুধের বোঝা চাপানো যাবে না রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি থাকবে সে হাসপাতালকে ওষুধের যোগান দিতে হবে এমন এই নতুন নির্দেশিকা জারি করল রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর

নতুন নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রিন্সিপাল, মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজের প্রিন্সিপাল এছাড়াও রাজ্যের সমস্ত কোভিড হাসপাতালের সুপারিটেন্ডেন্টদের কাছে

নির্দেশিকায় স্পষ্টতই বলা হয়েছে, প্রোটোকল অনুযায়ী যেসমস্ত নতুন ওষুধ কোভিড চিকিৎসায় ব্যবহার করতে হবে তা জোগাড় করার সম্পূর্ণ দায়িত্ব রোগী যে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তারই। কোনও ভাবেই রোগীর পরিবারের ঘাড়ে ওষুধ যোগাড় করার বোঝা চাপানো যাবে না। দীর্ঘদিন ধরেই রোগীর পরিবার অভিযোগ করছিল, করোনা চিকিৎসার জন্য রেমডিসিভির, এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ওষুধ টোসিলিজুমাব পাওয়া যাচ্ছে না। রোগী যে হাসপাতালে রয়েছেন তার আশপাশে ওষুধ না পেয়ে খোলাবাজার থেকে বেশি দামে ওষুধ কিনতে হচ্ছে। আর সেই সুযোগেই মুমূর্ষ রোগীর পরিবারের কাছে চড়া দামে বিক্রি করা হচ্ছে জীবনদায়ী ওষুধ কয়েক গুণ বেশি দামে। এছাড়াও কোনো বাড়ির কেউ করোনা পজিটিভ হলে সাধারণত বাড়ির অন্যান্যদের কোয়ারান্টাইন এ থাকায় নিয়ম। সেক্ষেত্রেও সমস্যায় পড়তে হচ্ছে ওষুধ জোগাড় করতে। অন্যদিকে ওষুধের দোকানদারের আক্রান্ত রোগীর পরিবারকে দোকানে প্রবেশ করতে বাধা দিচ্ছে। এই নতুন নির্দেশিকা জারি হওয়ার ফলে ওষুধ জোগাড় করতে দেরি হওয়ার কারণে চিকিৎসায় দেরি হচ্ছে এই অভিযোগ আনতে পারবে না আর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কারণ ওষুধ জোগাড় করার দায়িত্ব এখন থেকে তাদের।

46