৯/৭/২০২০,ওয়েবডেস্কঃপ্রায় চারদিন আগে অজ্ঞাত আততায়ীর হাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে জখম হয়ে চোপড়া ব্লকের দুই তৃণমূল কর্মীর হাসপাতালে ভর্তি হন। কিন্তু ভর্তি হওয়ার তিনদিনের মাথায় মৃত্যু হল চোপড়া থানার গোয়াগাঁও অঞ্চলের তৃণমূল কর্মীর মোস্তফা কামালের(৪২)। জানা গেছে মৃত ব্যক্তির বাড়ি স্থানীয় গিয়াবাড়ি এলাকায়। বুধবার চিকিৎসারত অবস্থায় শিলিগুড়ির একটি বেসরকারি নার্সিং হোমে তার মৃত্যু হয়। যদিও মৃত্যুর পর নার্সিংহোম সূত্রে জানানো হয়েছে যে মৃত ব্যক্তির করোনা রিপোর্ট পজিটিভ। এ ঘটনায় শোরগোল উঠেছে দলীয় মহলে। জানা গেছে, মৃত্যুর একদিন আগে আহত ব্যক্তির একটি অস্ত্রোপচার হয়। করোনা আক্রান্ত অবস্থায় সেটা কিভাবে হতে পারে সেই নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। পাশাপাশি শোক ও আতঙ্ক একইসাথে আছড়ে পড়ছে ঘনিষ্ট মহলে। চোপড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তথা তৃণমূল নেতা মহম্মদ আজহারউদ্দিন জানান, গত ছয় জুন সিপিএম কংগ্রেস জোট কর্মীদের গুলিতে গুলিবিদ্ধ হন মোস্তফা কামাল ও আবুল হোসেন সহ তাদের দলের দুই নেতাকর্মী। এরপর দু’জনকেই আশঙ্কাজনক অবস্থায় শিলিগুড়িতে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়।একজন উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ এবং অপরজনকে পাঠানো হয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে। এরপর বুধবার ভোরে মৃত্যু হয় মোস্তফা কামালের। অবিলম্বে দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারের পাশাপাশি তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়েছে পুলিশ জেলার পুলিশ সুপারের কাছে। এদিন মুস্তফা কামালের মৃত্যুর খবর পেয়ে এলাকায় পৌঁছান ইসলামপুর পুলিশ জেলার পুলিশ সুপার শচীন মাক্কার। যদিও বাম কংগ্রেস জোট নেতৃত্ব আগেই এই ঘটনার দায় অস্বীকার করেছেন। ঘটনার জোর তদন্ত শুরু হয়েছে।

12