বামেদের বদনাম করতে এসে আবার মুখ পুড়লো বিজেপির। প্রকাশ্যে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হলো খোদ বিজেপিকে।

ঘটনার সুত্রপাত হয় বাংলায় সিপিআইএমের মুখপত্র ‘গণশক্তি’ পত্রিকার একটি খবরকে উল্লেখ করে বিজেপির সম্পাদক রাম মাধবের করা একটি ট্যুইটকে ঘিরে।ট্যুইটে রাম মাধবের ‘গণশক্তি’তে চিনের সমর্থনে খবর প্রকাশের অভিযোগ করেন।

সিপিআইএম নেতা মহম্মদ সেলিম রাম মাধবের করা ট্যুইটের বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করে পাল্টা ট্যুইট করেন।এর পরেই নিজের ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে নেন রাম মাধব।

রাম মাধবের বক্তব্যের জবাবে এদিন সঠিক তথ্য দিয়ে ট্যুইট করেন সিপিআইএম পলিট ব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। টুইটে রাম মাধমের উদ্দেশ্যে কড়া ভাষায় সেলিম লেখেন “বিজেপির সাধারণ সম্পাদক এবং তথাকথিত ‘কৌশলগত ও বিদেশ নীতি বিশেষজ্ঞ’ সর্বভারতীয় টেলিভিশনে একটি ভুয়ো হোয়াটস অ্যাপ ফরওয়ার্ডের কথা উল্লেখ করেছেন। উল্লিখিত গণশক্তি প্রতিবেদন এখনও অনলাইনে রয়েছে এবং অবশ্যই তার বাংলা জানতে কোনো অনুবাদকের সাহায্য নেওয়া উচিত। “

মহম্মদ সেলিমের আক্রমণাত্মক টুইটের পর ক্ষমা চেয়ে রাম মাধব লেখেন ” মহঃ সেলিম ঠিক বলেছেন, আমি যে ব্যখ্যা দিয়েছিলাম তা একদমই সত্য নয়। আমি দুঃখিত। আমি কখনো হোয়াটস অ্যাপ স্টোরিতে বিশ্বাস করিনা। কিন্তু এটা একজন প্রবীণ এবং শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি বাংলা থেকে পাঠিয়ে ছিলেন, তাই আমি বিশ্বাস করি এটা সত্য”।

কিছুদিন ধরেই বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়ার মিথ্যে খবরের বিরুদ্ধে সরাসরি রুখে দাঁড়াতে দেখা যাচ্ছে বামেদের। আগে বিজেপির আইটি সেল নানা ভ্রান্ত তথ্যের সমাহারে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে বলে অভিযোগ করতো বামেরা। এখন শুধু অভিযোগ নয় পাল্টা আক্রমণে বিজেপিকে নাস্তানাবুদ করতে দেখা যাচ্ছে বামেদের। এই সব ঘটনা থেকেই প্রশ্ন উঠছে বামেরাই কি তাহলে ২০২১ প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে উঠে আসছে বিজেপির সামনে?

10