সারাদেশে করোনার আক্রমন অব্যাহত। কত লক্ষে যে পৌঁছাবে আক্রান্তের সংখ্যা তা এখনো কেউ বলতে পারছেন না কারণ মানুষ আনলক চালু হওয়ার পর থেকেই স্বাভাবিক জীবন যাপন শুরু করেছেন। অফিস কাছারি খুলেছে। বাস-ট্রেনে যাতায়াত শুরু হয়েছে।দোকান বাজার হাটে মানুষ যাচ্ছেন। অবাধে মেলামেশা করছেন।বন্ধ শুধু স্কুল-কলেজ।তাছাড়া সমাজের সর্বত্র মানুষের মেলামেশাও শুরু হয়ে গেছে আর এরই ফলে বাংলায় ঊর্ধ্বমুখী হচ্ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে কি আবার 18ইজুন থেকে রাজ্যে শুরু হতে পারে নতুন করে লকডাউন? তামিলনাড়ুর মতো রাজ্য ইতিমধ্যেই এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে।

উল্লেখ্য, মানুষের রুজি-রুটির কথা ভেবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আনলকের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছিলেন।সেই সরকারি স্বাস্থ্য দপ্তর চিকিৎসক এবং বিশেষজ্ঞ মহলের পক্ষ থেকে বারো বার মানুষকে সচেতন করা হয়েছিল যাতে সামাজিক মেলামেশা,স্বাভাবিক যাতায়াত তারা এখনই শুরু না করেন কিন্তু তার পরেও সচেতন নন বাংলার মানুষ।সরকারপক্ষ এবং চিকিৎসক স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে বারংবার সতর্ক করা সত্ত্বেও মানুষ সচেতন হন নি স্বাভাবিকভাবে ভাবে সর্বত্র ঘুরে বেড়াচ্ছেন আর তার ফলেই সামাজিক সংক্রমণের ভয় তৈরি হয়েছে।এই পরিস্থিতিতে রাজ্যে কি পুনরায় চালু হতে যাচ্ছে লকডাউন?এমন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।কারণ একবার যদি সামাজিক সংক্রমণ শুরু হয়ে যায় তাহলে পশ্চিমবঙ্গের মতো ঘনবসতিপূর্ণ রাজ্যের পক্ষে সেই আক্রমণ প্রতিহত করা কতটা সম্ভব হবে প্রশ্ন থাকে তাই নিয়েই।

যদিও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এরকম কোন বিজ্ঞপ্তি বা লিখিত বিবৃতি এখনো পাওয়া যায়নি কিন্তু বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে সম্ভবত রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা যে হারে বাড়ছে তার দিকে লক্ষ্য রেখেই রাজ্য সরকার আবার হাঁটতে যাচ্ছেন লকডাউনের পথে।

17