করণা আতঙ্কে বীরনগরে হুলুস্থূলু। স্থানীয় সূত্রে খবর,ঐ এলাকার এক টোটো চালকের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে। তাদের দাবি সেই রিপোর্ট আসতেই আক্রান্ত রোগীর বাড়িতে ভয়ে কান্নাকাটি শুরু হয়ে যায়। এবং খবর জানাজানি হতেই স্থানীয়রা জমায়েত করতে শুরু করলে পুলিশ উপস্থিত হয়। এরপর এলাকার কাউন্সিলর রায়গঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাস সকল বাসিন্দাকে নিজ নিজ বাড়িতে যেতে বলেন এবং সকলকে বাড়িতে থাকার অনুরোধ করেন। কিছু সময় পরে স্বাস্থ্য দপ্তরের লোকেরা এসে বছর পঁয়তাল্লিশের সেই রোগীকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়। জানা যায় কর্মসূত্রে তিনি টোটো চালক। কিছুদিন আগে তিনি রায়গঞ্জ হাসপাতালে গিয়েছিলেন। তবে তার সংক্রমণ কিভাবে হল সে বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নয় স্বাস্থ্য প্রশাসন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ঐ ভদ্রলোক কে রায়গঞ্জে কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে বিশেষ সূত্র মারফত জানা গিয়েছে। এদিকে রায়গঞ্জের সাধারণ মানুষের মধ্যে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে যে এটা গোষ্ঠী সংক্রমণের লক্ষণ কিনা?

রায়গঞ্জের পুরপ্রধান সন্দীপ বিশ্বাস জানিয়েছেন গত ৫ই জুন রায়গঞ্জে গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে কিনা বোঝার জন্য দেবিনগরে একটি স্পটে ২৫ জন মানুষের random sample সংগ্রহ করা হয়। আজ তার রিপোর্ট এলে দেখা যায় আমার ওয়ার্ডে আমার বাড়ির কাছেই ভবেশ বর্মন নামক একজন টোটো চালকের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। আমরা তার বাড়িতে এসে তাকে কোভিড হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করি। অন্যদিকে আক্রান্তের পরিবারকে হোম কোয়ারান্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে। কোয়ারান্টাইনে থাকাকালীন রায়গঞ্জ পুরসভা তাদের পাশে সবরকম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে।

অন্যদিকে জেলা স্বাস্থ্য দফতরের প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী উত্তর দিনাজপুর জেলায় আরও চারজন নুতন করে কোভিড ১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের একজন চাকুলিয়া, একজন করণদিঘী এবং রায়গঞ্জের দুজন।

110