তাহলে কি এবার মেট্রোও চলতে শুরু করবে ?

ওয়েবডেস্ক,মে,২৮,২০২০: দেশজোড়া লকডাউনে দু’মাসেরও বেশি সময় বন্ধ থাকার পর ফের আজ থেকে ট্র্যাকে চলতে শুরু করবে কলকাতা মেট্রো এবং ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর চাকা। আসলে লকডাউন পরবর্তী সময়ে যাত্রী পরিবহণে যাতে কোনও সমস্যা না হয় তার জন্য আজ থেকেই দুই মেট্রোর মহড়া দেওয়া শুরু হচ্ছে। একই সঙ্গে, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দু’জায়গাতেই প্রাথমিক ভাবে টোকেন ব্যবস্থা পুরোপুরি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে কলকাতা মেট্রো। তবে পাঁচ বা ১০ টাকা দিয়ে আর টোকেন নয়, তার বদলে ১০০ টাকা দিয়ে গোটা মাসের জন্য স্মার্ট কার্ড কেটেই মেট্রোয় উঠতে পারবেন যাত্রীরা। মেট্রোরেলের টোকেন থেকে যাতে সংক্রমণের কারণ না হয়, তার জন্যই এমনই সিদ্ধান্ত। সংস্থার চিফ অপারেটিং ম্যানেজার সাত্যকি নাথ সাংবাদিকদের বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ শুরু হতেই মেট্রোর টোকেন আমাদের কাছে চিন্তার কারণ ছিল। প্রতিবার স্মার্ট গেট থেকে টোকেন বের করে কাউন্টারে আনার আগে স্যানিটাইজার দিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হচ্ছিল।’ আপাতত টোকেন বন্ধ করে পুরোপুরি স্মার্টকার্ড ব্যবহার করার মাধ্যমেই ‘হাতে হাতে ভাইরাসের সংক্রমণ’ ঠেকানো সম্ভব বলে মনে করা হচ্ছে। সাত্যকির কথায়, ‘স্মার্ট কার্ড হাতবদলের সম্ভাবনা নেই। ফলে এই ব্যবস্থা অনেক নিরাপদ।’ কলকাতা মেট্রোর প্রায় ৭০% যাত্রীই স্মার্ট কার্ড ব্যবহার করেন। কোনও যাত্রী ন্যূনতম ১০০ টাকা দিয়ে স্মার্ট কার্ড কাটার পর মাঝপথে কার্ড ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নিলে কাউন্টারে কার্ড ফিরিয়ে দিয়ে বকেয়া পয়সা ফেরত নিতে পারবেন। কাউন্টারে যাত্রীদের ভিড় কমাতে অনলাইনে কার্ড রিচার্জ করার উপরে জোর দেওয়া হবে।সূত্রের খবর, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে মেট্রোয় ভিড় কমানোর নির্দেশ এসেছে রেল বোর্ডের তরফ থেকে। এই কারণেই টোকেন-ব্যবস্থা আপাতত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত। কিন্তু ভিড় কমানোর জন্য স্মার্টকার্ড চালু হলে তার দামের জন্যই দৈনিক যাত্রীর সংখ্যা সাময়িক ভাবে কমতে পারে বলে মেট্রো কতৃর্পক্ষের একাংশের ধারণা। এ দিকে যাত্রী পরিবহণ শুরু হওয়ার আগে আজ থেকে যে মহড়া চালু হচ্ছে, সেই ট্রেনকে স্টাফ স্পেশ্যাল নাম দেওয়া হয়েছে। এই ট্রেন রোজ সকালে ১০ টা নাগাদ কবি সুভাষ এবং নোয়াপাড়া থেকে ছাড়বে। অন্য দিকে বিকালে ৪টে নাগাদ ফের ওই দুই স্টেশন থেকে ফিরবে। এই ট্রেনে শুধুমাত্র মেট্রোরেলের কর্মীরাই যাতায়াত করতে পারবেন।

142