https://kulikinfoline.com/vid-20200521-wa0026-3gp/

বিশেষ প্রতিবেদন  : ২১শে মে,২০২০: রাস্তার ধারে শাকসবজি ফলমূল মাছ মাংসের বাজার। রায়গঞ্জ মোহনবাটি বাজার এখন আর তার নির্দিষ্ট জায়গায় নেই। স্থানীয় দেহশ্রী মোড় থেকে রাস্তার দুই পাশ ধরে কোর্ট মোড় পর্যন্ত এলাকা জুড়ে চলছে এই বাজার। রাস্তার ধারেই মানুষ জিনিসপত্র কিনছেন।ভিড় থাকে বাজারে।লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে এটাই স্বাভাবিক চিত্ররআয়গঞ্জ মোহনবাটি বাজারের। কারণ উত্তর দিনাজপুর এতদিন গ্রীণ জোন ছিলো।কাজেই দোকান বাজার খোলা ছিল। নিত্যপ্রয়োজনীয় সবজির বাজার খোলা ছিল। কিন্তু এখন গতকাল থেকে অতি প্রবল ঘূর্ণী ঝড় আমফানের ফলে যে তীব্র ঝড়ো হাওয়া এবং বৃষ্টি শুরু হয়েছে তাতে আজকে সকালে মোহনবাটি বাজারের ব্যবসায়ীরা খোলা আকাশের নিচে রাস্তার দু’পাশে অসহায় ভাবে বসে আছেন তাদের জিনিসপত্র নিয়ে। খরিদ্দারের দেখা নেই। কেউ কেউ নিজের ছাতা নিজেই বহন করছেন। কেউ কেউ বহুকষ্টে বেঁধে রেখেছেন ছাতাটিকে। কারণ হাওয়ার গতিবেগ অত্যন্ত তীব্র অত্যন্ত। করোনার সাথে সাথে আমফানের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে কতটা সমস্যার মধ্যে রয়েছেন ব্যবসায়ীরা আমাদের নিজস্ব প্রতিনিধি বাজারের সবজি ও মাছ ব্যবসায়ীদের সেই অসহায়তার চিত্র তুলে ধরেছেন। আমরা দেখতে পাচ্ছি রাস্তার দু’পাশ দিয়ে ব্যবসায়ীরা বসে আছেন। সকাল ন’টা সাড়ে নটা হয়ে গেলেও বাজারে তেমন ভিড় নেই। আবহাওয়া খারাপ। ঝড়ো হাওয়া বইছে। সঙ্গে বৃষ্টি। অল্প কিছু মানুষেরই যাতায়াত রয়েছে। ব্যবসায়ীরা তাদের পসরা সাজিয়ে বসেছেন খোলা আকাশের নিচে। অসহায় ভাবে। তাদের দেখার কেউ নেই।

32