রাজকুমার হত্যার বিচার চাই মঞ্চের আহ্বানে লকডাউনের মধ্যেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাজকুমার রায়ের মৃত্যুর দ্বিতীয় বার্ষিকী পালিত হল রায়গঞ্জ ঘড়ি মোড়ে। অনুষ্ঠানে রাজকুমারের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন প্রয়াত রাজকুমারের স্ত্রী অর্পিতা রায় বর্মন এবং মঞ্চের অন্যতম আহ্বায়ক প্রিয়রঞ্জন পাল। প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় উপস্থিত সকলে। মঞ্চের অপর আহ্বায়ক ভাস্কর ভট্টাচার্য বলেন মঞ্চ এই দিনটিকে ভোটার ও ভোট কর্মীদের অধিকার রক্ষা দিবস হিসেবে পালন করে। এই দিন সাধারণ ভাবে রাজকুমার স্মারক বক্তৃতা আয়োজন করা হয় কিন্তু এই বছর করোনা সংক্রমণের কারনে লকডাউন চলছে বলে তেমন কোনো আয়োজন করা সম্ভব না। বরং মঞ্চ এইদিন লকডাউনের কারণে যাদের জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পরেছে এইরকম মানুষের হাতে ত্রাণ তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই অনুষ্ঠানে রাজকুমারের সহধর্মীনি অর্পিতা দেবী স্বামীর স্মৃতিতে মঞ্চের ত্রাণ তহবিলে ১০,০০০ টাকা আহ্বায়ক ভাস্কর ভট্টাচার্যের হাতে তুলে দেন।

বিগত ২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রিসাইডিং অফিসারের দ্বায়ীত্ব পালন করতে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে যান রহতপুর হাই মাদ্রাসার ইংরেজির শিক্ষক রাজকুমার রায়। একদিন পরে রহস্যজনক ভাবে রাজকুমার রায়ের মৃতদেহ পাওয়া যায় বুথ থেকে ২৫ কিমি দূরে রায়গঞ্জের সোনাডাঙ্গির কাছে রেল লাইনের ধারে। রাজকুমার কে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে এই অভিযোগে উত্তাল হয়ে ওঠে রায়গঞ্জ সহ বিভিন্ন জায়গায়। আন্দোলন ছড়িয়ে পরে গোটা রাজ্যে। নিরপেক্ষ তদন্ত ও নায্য বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠে রাজকুমার হত্যার বিচার চাই মঞ্চ। সিবিআই তদন্তের দাবিতে হাইকোর্টে মামলা হয় যার শুনানি এখনও চলছে রাজকুমারের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী থেকে এই দিনটি ভোটার ও ভোট কর্মী দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

এইদিন দুপুর বেলা রাজকুমার হত্যার বিচার চাই মঞ্চের পক্ষ থেকে বারোদূয়ারীতে একটি যাযাবর বস্তিতে এবং পরে কুলিক পক্ষীনিবাসের কাছে অপর আর একটি যাযাবর বস্তিতে সব পরিবারের সব সদস্যদের হাতে চাল, ডাল, আলু, সয়াবিন, তেল, সাবান, বিস্কুট এবং মাস্ক তুলে দেওয়া হয়। আগামীতেও আরো কয়েকদিন মঞ্চের পক্ষে ত্রাণ দেওয়ার কাজ চালানো হবে বলে জানানো হয়েছে।

19