ওয়েব ডেস্ক এপ্রিল ২২,২০২০:

মূলত ম্যালেরিয়ার ওষুধ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন নিয়ে বিতর্ক মোটেই ছাড়ছে না। এই কদিন আগেই হুমকির মুখে দাঁড়িয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কে ওষুধ যোগান দিয়েছিলো ভারত। আর আজ জানা গেলো করোনা মোকাবিলায় মোটেই তেমন কার্যকরী নয় এই ড্রাগ। আদতে ক্লোরোকুইন ফসফেট ম্যালেরিয়া সারানোর ওষুধ। ক্লোরোকুইনের হাইড্রক্সিলেটেড সল্টকে বলে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন। ম্যালেরিয়া ছাড়াও এটি অন্য কানেক্টিভ টিস্যু ডিসঅর্ডার যেমন লুপাস, রিউম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিস, জোগ্রেন সিন্ড্রোম ইত্যাদিতে এর ব্যবহার হয়। তবে কিছুদিন আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও টেসলা প্ল্যান্টের কো-ফাউন্ডার ইলোন মাস্ক দাবি করেছিলেন, করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন সাংঘাতিক সুফল আনতে পারে। ট্রাম্পের ঘোষণার পরেই আমেরিকায় তো বটেই অন্যান্য দেশেও এই ওষুধের চাহিদা বেড়ে যায়। তবে মার্কিন ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (FDA) জানিয়েছিল, করোনা রোগীদের উপরে এই ড্রাগ কতটা কার্যকরি সেটা এখনও স্পষ্ট নয়। এফডিএ জানিয়েছিল, কোভিড-১৯ সংক্রমণ যদি প্রাথমিক পর্যায়ে থাকে অথবা অল্পের উপর হয় তাহলে ক্লোরোকুইনের নির্দিষ্ট ডোজে সেটা কমতে পারে। রোগীর গোটা শরীরে যদি সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে তাহলে কীভাবে সেটা ক্লোরোকুইন প্রয়োগ করে রোখা যাবে সেই গবেষণাই চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। এফডিএ এমনও দাবি করেছিল, ওষুধের মাত্রা যদি ২ গ্রামের বেশি হয়ে যায়, তাহলে সেটা রোগীর মৃত্যুর কারণও হতে পারে। তাই করোনার সংক্রমণ কমাতে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের প্রয়োগ যে সবক্ষেত্রেই সাফল্য আনবে সেটা এখনও জোর গলায় বলতে পারেননি বিজ্ঞানীরা।

প্রসঙ্গত করোনা চিকিৎসায় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনকে সবুজ সঙ্কেত দিতে পারেনি ভারতও। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ এই ওষুধের ব্যবহারে একটি নির্দেশিকা জারি করেছিল। বলা হয়েছিল, রোগীদের উপরে এখনই এই ওষুধ প্রয়োগ করা যাবে না। বরং যে স্বাস্থ্যকর্মীরা ২৪ ঘণ্টা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করছেন তাদের উপরে প্রয়োগ করা যেতে পারে এই ড্রাগ। পসর্গ ধরা পড়েনি (Asymptomatic) কোয়ারেন্টাইনে থাকা এমন রোগী যাদের শরীরে কোভিড-১৯ পজিটিভ, তাঁদের সংস্পর্শে থাকছেন বা চিকিৎসা করছেন এমন ব্যক্তিদের উপরেও প্রয়োগ করা যাবে এই ড্রাগ। তবে যাঁরা এই ওষুধ খাবেন তাঁদের স্বাস্থ্যপরীক্ষা করানো জরুরি। তবে সম্প্রতি আইসিএমআর জানিয়েছে, এই ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া চিন্তার বিষয়। যে স্বাস্থ্যকর্মীদের এই ওষুধ খাওয়ানো হয়েছিল তাঁদের বেশিরভাগেরই পেটে ব্যথা, বমি ভাব ও অন্যান্য শারীরিক সমস্যা দেখা গেছে।

তবে এখন মার্কিন বিজ্ঞানীদের বক্তব্যে জানা যাচ্ছে, এই ড্রাগ এর হিউম্যান ট্রায়ালের ফল মোটেই আশাপ্রদ নয়।গবেষকরা এখন বলছেন, করোনা রোগীদের উপরে এই ওষুধের তেমন কোনও প্রভাব লক্ষ্য করা যায়নি। ট্রাম্প বলেছিলেন, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খেলে নাকি সংক্রামিত রোগীদের আর ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দেওয়ার দরকার হবে না। তাদের সমস্যা এমনিতেই কমে যাবে। কিন্তু রোগীদের দীর্ঘদিন পর্যবেক্ষণে রেখে তেমন কোনও কার্যকরি প্রভাব দেখা যায়নি। হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খাওয়ার পরেও সঙ্কটাপন্ন রোগীকে আইসিইউতে ভর্তি করে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট দিতে হয়েছে। বরং দেখা গেছে কিছু ক্ষেত্রে রোগীর শারীরিক সমস্যা বেড়েছে বৈ কমেনি।

28