করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রুখতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কে সুনির্দিষ্ট ৫টি পরামর্শ দিলেন জাতীয় কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। আগামী দুবছর সরকারি বিজ্ঞাপন বন্ধ রাখা ও দিল্লির সৌন্দর্য্যায়নে ২০০০০ কোটি টাকা খরচ আপাতত স্থগিত রাখা এর মধ্যে অন্যতম। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে লেখা এক পত্রে তিনি লিখেছেন এই মুহূর্তে দেশের স্বার্থে টেলিভিশন, প্রিন্ট এবং অনলাইন মিডিয়ায় সমস্ত সরকারি বিজ্ঞাপন দু বছরের জন্য বন্ধ করার দাবি জানালেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। এদিন প্রধানমন্ত্রীকে লেখা এক চিঠিতে সোনিয়া গান্ধী আরও জানান – এখন শুধুমাত্র করোনা সংক্রান্ত অথবা স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন ছাড়া আর সমস্ত বিজ্ঞাপন বন্ধ করা হোক।

এদিনের চিঠিতে কংগ্রেস সভানেত্রী জানান – সরকার মিডিয়ায় বিজ্ঞাপনের জন্য প্রতি বছর প্রায় ১,২৫০ কোটি টাকা খরচ করে। এছাড়াও বিভিন্ন সরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে যে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয় তার খরচ আরও বেশি। এই সমস্ত বিজ্ঞাপন বন্ধ করা হলে সরকার করোনার বিরুদ্ধে লড়ার জন্য বহু টাকা জোগাড় করতে সক্ষম হবে


সোনিয়া গান্ধী আরও জানিয়েছেন – কেন্দ্রীয় সরকার সেন্ট্রাল ভিস্টা প্রকল্পে যে ২০ হাজার কোটি টাকা খরচের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা আপাতত বন্ধ রাখা হোক। এই পরিস্থিতিতে এই ধরণের বিলাসিতা দেখানো সঠিক পথ নয়। দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে এই কাজ এখন গুরুত্বপূর্ণ নয়। দেশের সংকটের সময় এই খরচ বাঁচানো যেতে পারে। বরং এই টাকা দিয়ে নতুন হাসপাতাল তৈরি হোক, পিপিই-র ব্যবস্থা হোক। এগুলোই এখন অগ্রাধিকার।

ওই চিঠিতে সোনিয়া গান্ধী জানান – বেতন, পেনশন এবং সেন্ট্রাল সেক্টরের বিভিন্ন যোজনার খরচ বাদ দিয়ে বাকী সব কিছুতে ৩০ শতাংশ খরচ কমানো হোক। এই ৩০ শতাংশ টাকার পরিমাণ প্রায় আড়াই লক্ষ কোটি টাকা। এই টাকা দিয়ে প্রবাসী শ্রমিক, কৃষক, শ্রমিক এবং অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের জন্য সুরক্ষার বন্দোবস্ত করা যেতে পারে।

তিনি আরও দাবি জানান – পি এম কেয়ারস ফান্ড-এর সমস্ত টাকা প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রীয় ত্রাণ তহবিলে পাঠানো হোক। এতে এই টাকার বন্টন এবং খরচের হিসেব অডিটের মাধ্যমে সঠিকভাবে রাখা সম্ভব হবে।

এই চিঠিতে তিনি জানান, করোনার সঙ্গে লড়াই করবার জন্য সমস্ত ভারতীয় ব্যক্তিগত ভাবে ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত। তাঁরা প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রক দেওয়া সমস্ত পরামর্শ নির্দেশ মেনে চলছেন। এখন মানুষের বিশ্বাস এবং ভরসা ফিরিয়ে আনা সরকারের দায়িত্ব

38