প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীর কাছে আহ্বাণ জানিয়েছেন 25শে মার্চ থেকে এপ্রিলের 15 তারিখ পর্যন্ত দেশজুড়ে লক ডাউনের। এই সময় যে যেখানে আছেন সেখানে থেকে যেন সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং গড়ে তোলেন সেই আহ্বাণও জানিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু রায়গঞ্জে খোদ সাংসদের বিরুদ্ধেই তা অমান্য করার অভিযোগ উঠল। দিল্লি থেকে ফিরে গতকাল রায়গঞ্জের সাংসদকে এলাকায় সচেতনতা বৃদ্ধি অভিযানের নামে মাস্ক বিলি করতে দেখা যায়। সঙ্গে ছিলেন তাঁর অনুগামীরা। কিন্তু তার এই কর্মসূচিকে ঘিরে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। চাকুলিয়ার বিধায়ক আলি ইমরান রমজ অভিযোগ করেছেন সাংসদ দিল্লি থেকে দুদিন আগে ফিরেছেন। জেলা প্রশাসনের ঘোষিত বিধি অনুসারে তার 14দিন হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার কথা। কিন্তু তিনি দুদিনের মধ্যেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে মাস্ক বিলি করছেন। ফলে তিনি মানুষের খুব কাছাকাছি চলে যাচ্ছেন। এটা রিতিমত চিন্তার বিষয়। তিনি অনুগামীদের নিয়ে দলবেধে প্রচারের নামে রাজনীতি করতে গিয়ে লক ডাউন মানছেন না। “তিনি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বাণ কে অগ্রাহ্য করছেন?” – প্রশ্ন তুলেছেন ইমরান। অন্যদিকে তৃণমূলের জেলা সভাপতি কানহাইয়া লাল আগরওয়াল আরো একধাপ এগিয়ে স্বাস্থ্য বিধি ভঙ্গের অভিযোগে সাংসদের বিরুদ্ধে জেলা শাসকের কাছে অভিযোগ জানাবেন বলে জানিয়েছেন। অন্য দিকে জেলা বিজেপি সূত্রে জানানো হয়েছে সাংসদ লক ডাউন ঘোষণার আগেই দিল্লি থেকে কলকাতায় চলে এসেছেন। এতদিন তিনি কলকাতাতেই ছিলেন। যদিও লক ডাউন ভঙ্গ নিয়ে কোনো মন্তব্য করা হয়নি বলে জানা গিয়েছে।

34