বাবা রাম দেবের পতঞ্জলি আয়ুর্বেদিক সংস্থাকে ৭৫ কোটি টাকা জরিমানা করলো এনএএ। ক্রেতাদের ঠকানোর অভিযোগ তুলে ন্যাশনাল অ্যান্টি প্রফিটিং অথরিটি (এনএএ) পতঞ্জলি আয়ুর্বেদকে ৭৫.১ কোটি টাকা জরিমানা করল। সংস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ম ভেঙে ক্রেতাদের পণ্য পরিষেবা করের (জিএসটি) সুবিধা দেওয়া হয়নি। অভিযোগ উঠেছে, সংস্থার ওয়াশিং পাউডারের দাম বাড়িয়ে বিক্রি করা হয়ে‌ছে। জিএসটি কমে গেলেও পুরনো দামে বিক্রি করা হয়েছে।

গত সপ্তাহেই এই মর্মে পতঞ্জলিকে নোটিস পাঠানো হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে ১৮ শতাংশ জিএসটি-সহ ৭৫.১ কোটি টাকা অবিলম্বে কেন্দ্রীয় সরকারের গ্রাহক কল্যাণ দফতরকে জমা করতে হবে। এর জন্য পতঞ্জলিকে তিন মাস সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে
জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে ওয়াশিং পাউডারের উপরে জিএসটি-র পরিমাণ প্রথমে ২৮ শতাংশ থেকে ১৮ শতাংশ করা হয়। এর পরে তা আরও কমে ১২ শতাংশ হয়। এর ফলে সব ওয়াশিং পাউডারের দামই কমে যায়। কিন্তু পতঞ্জলি ক্রেতাদের জিএসটি কমে যাওয়ার সুবিধা না দিয়ে পুরনো দামেই বিক্রি করেছে।

এই অভিযোগ ওটার পরে প্রথমে এনএএ একটি কারণ দর্শানোর নোটিস দেয় পতঞ্জলিকে। তার পরিপ্রেক্ষিতে জবাবও দেয় পতঞ্জলি। কিন্তু সেই জবাবে সন্তুষ্ট না হয়ে এনএএ জরিমানা ধার্য করেছে। এর আগেও বার বার পতঞ্জলি সংস্থা ও বাবা রামদেবের বিরুদ্ধে ক্রেতাদের প্রতারনা করার অভিযোগ উঠেছে। বিশেষজ্ঞদের মতে রামদেব বাবার পতঞ্জলি সংস্থাটি ভিত্তি হীন বিভিন্ন অবৈজ্ঞানিক দাবি করে ক্রেতাদের প্রতারনা করেও পার পেয়ে যায় একমাত্র শাসকের সাথে সুসম্পর্ক থাকার কারণে। অত্যন্ত চতুর রামদেব বাবা সব সময় ক্ষমতাশীল দলের সাথে আতাত করে বহু বছর ধরে ক্রেতাদের প্রতারনা করেও বার বার পার পেয়ে যায়।

14