Categories
জেলার খবর শিক্ষা

অনলাইনে গঠিত হয়ে গেল বেসরকারি শিক্ষকদের সংগঠন

ওয়েব ডেস্ক আগস্ট ২১, ২০১৯ : সারা ভারতের সি বি এস সি ও আই সি এস সি বোর্ডের বেসরকারী শিক্ষকদের নিয়ে একটি সংগঠন গঠিত হয়ে গেল অনলাইনের মাধ্যমেই। সারা ভারতের বিভিন্ন বেসরকারী ইংরেজি মাধ্যম বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা একসাথে সাধুবাদ জানিয়েছেন আহ্বায়কদের। এই সংগঠনের বিভিন্ন দায়িত্ব নিয়ে রাজ্য শিক্ষা দপ্তর ও কেন্দ্র শিক্ষা দপ্তরে হাজির হবেন বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে। বহুবছর ধরেই বঞ্চিত হচ্ছেন বেসরকারী

বিদ্যালয়ের শিক্ষকগন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে নেমে আসছে মানসিক অবসাদগ্রস্হতা। কোনো রাজনৈতিক দলের নেতা সমাজের এই শিক্ষকদের নিয়ে দুটো শব্দও খরচ করেন নি। কোনো স্কুলে নিয়োগপত্র নেই, কোনো স্কুলে পি এফ নেই এবং বেশিরভাগ স্কুলেই নিরাপত্তা নেই বলে জানালেন বেশ কিছু বেসরকারী বিদ্যালয়ের শিক্ষক। গোরক্ষপুরের এক বেসরকারী শিক্ষক টেলিফোনে জানালেন যে বেসরকারী স্কুলে বেতনের অবস্হা এতটায় খারাপ যে যে তিনি যেকোন মুহুর্তেই ব্যবসার দিকে ঝুঁকে যাবেন। তথ্য জোগাড় করতে গিয়ে জানা গেল বিহারের কিষানগঞ্জের এক বেসরকারী শিক্ষক বছর দুই আগেই স্কুল ছেড়ে দে মার্কেটে দোকান দিয়েছেন। শিলিগুড়ির এক নামী স্কুলের সেক্রেটারি সাথে যোগাযোগ করা হলে উনি বলেন, “আমারা তো বেতন দিই। তবে আশা করা যাক এরপরে আরো কিছু বেতন বাড়ানোর কথা ভাবা হবে।”তবে সবাই একবাক্যে মেনে নিয়েছেন কাগজে কলমে কারচুপি রয়েছে। নতুন সংগঠনের নাম রাখা হয়েছে অল ইন্ডিয়া সি বি এস সি এন্ড আই সি এস সি টিচার্স এসোসিয়েশন। খুব শীঘ্রই শিক্ষকদের নিরাপত্তা ও বেতন বাড়ানোর জন্য রাস্তায় ও নামবেন বলে জানালেন সংগঠনের বিভিন্ন সদস্যরা। বিভিন্ন বর্ষীয়ান কবি সাহিত্যিক ও এই সংগঠনকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন। বর্ষীয়ান কবি অরুন চক্রবর্তী অনলাইন গ্রুপেই তাঁর শুভেচ্ছাবার্তা দিয়েছেন।সংক্ষেপে অর্গানাইজেশনের নাম রাখা হয়েছে CITO. সংগঠনের ভবিষ্যৎ নিয়ে আশাবাদী সংগঠন টির আহ্বায়ক বিনয় লাহা, সরোজ সরকার, দীপক পাল, সমিধ বিশ্বাস, দেবব্রত পাতিকার, ইন্দ্রজিত রায়, ড:বানীব্রত ত্রিপাঠী সহ অনেকেই।

163

Leave a Reply