ছুটিতে বাড়ি এসে হোস্টেলে ফেরার সময় নিখোঁজ হয়ে গেল দশম শ্রেণির ছাত্র। গত ছদিনেও ওই কিশোরের খোঁজ না মেলায় দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন পরিজনেরা! পুলিশ জানায়, কিশোরের নাম মেহবুব রানা। বাড়ি চাঁচলের জামগাছি-দাউদপুর এলাকায়। কালিয়াচকের একটি বেসরকারি স্কুলে পড়াশুনা করে সে। সেখানেই হোস্টেলে থাকে দশম শ্রেণির এই মেধাবী ছাত্রটি। গত মঙ্গলবার তাকে বাসে তুলে দেন বাবা আব্দুল রাজ্জাক। কিন্তু তারপর থেকে আর তার খোঁজ মেলেনি।
পুলিশ সূত্রে খবর গত মঙ্গলবার ইটাহার থেকে রানাঘাটগামী একটি সরকারি বাসে রানাকে তুলে দেন তার বাবা। দুপুরের মধ্যেই তার কালিয়াচক পৌঁছে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পরে ছেলের সঙ্গে আর যোগাযোগ করতে না পেরে হোস্টেল কতৃপক্ষের কাছে খোঁজ নেওয়া হয়। কিন্তু রানা সেখানে পৌঁছায়নি বলে জানিয়ে দেওয়া হয়। সেদিনই ইটাহার থানায় নিখোঁজের অভিযোগ জানানো হয়। পাশাপাশি চাঁচল থানাতেও বিষয়টি জানানো হয়।
জানা গিয়েছে পরদিন বাবা রাজ্জাকের মোবাইলে একটি ফোন আসে। তাকে বলা হয় যে, ছেলেকে বাঁচাতে চাইলে তার আধার কার্ড নিয়ে আসতে হবে। কালিয়াচক বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে ফোন করলেই কোথায় তা দিতে হবে জানিয়ে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়। সেকথা পুলিশকে জানানো হলে পুলিশ খোঁজ নিয়ে ঐ ফোন নম্বর নদিয়ার নাকাশিপাড়ার বলে জানতে পারে। যদিও ফোনের মালিক আধার কার্ড নিয়ে যাওয়ার কথা বলে কোনো ফোন করেন নি বলে জানিয়েছেন। ফলে পুলিশ চড়ম ধন্দের মধ্যে পড়েছে। কারণ তাকে অপহরণ করা হয়ে থাকলে টাকা না চেয়ে আধার কার্ড কেন চাওয়া হবে সেটা বুঝে উঠতে পারছে না পুলিশ।
চাঁচলের আইসি সুকুমার ঘোষ বলেন, বিষয়টি ইটাহার থানা দেখছে আমরাও ইটাহার থানার সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।

15