ওয়েবডেস্ক:৬ই এপ্রিল: সকাল থেকেই মুখ ভারী আকাশের।তীব্র হাওয়ার সাথে তুমুল বৃষ্টি।কিন্তু এই প্রবল দূর্যোগকে উপেক্ষা করেই প্রচারে ঝড় তুললেন রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রের বামফ্রন্ট প্রার্থী মহম্মদ সেলিম।বৃষ্টিতে ভিজেই সমর্থকদের নিয়ে হেমতাবাদের মহারাজাহাট এলাকার বাজার হাট পাড়ায় পাড়ায়।কখনও দাঁড়ালেন বন্ধ দোকানের সামনে।ধামসাও বাজালেন। আবার কখনও মাইক হাতে নিয়ে বুথে বুথে লড়াই করার বার্তা দিলেন কর্মীদের।

আবার অন্যদিকে দার্জিলিং লোকসভা কেন্দ্রের সিপিআইএম প্রার্থী সমন পাঠক । তৃণমূল হটাও বাংলা বাঁচাও, বিজেপি হটাও দেশ বাঁচাও এই স্লোগান তুলে চোপড়া ব্লকের দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় প্রচারে ঝড় তুলল বামেরা । চোপড়া থেকে ১৮ কিমি দূরে দাসপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েত। কৃষি ও চা বাগান ভিত্তিক এই এলাকায় তৃণমূল ও বিজেপির সদস্য তেমন নেই। স্বাভাবিকভাবেই সিপিআইএম কর্মীরা উদ্দিপনা সৃষ্টি করে সকালে প্রচার অভিযান চালায়। র‍্যালি মিছিল কর্মীসভাও করা হয় । সভায় উপস্থিত ছিলেন চোপড়ার প্রাপ্তন বিধায়ক আনওয়ারুল হক, জেলার যুব সহসভাপতি বিদ্যুৎ তরফদার, চোপড়া ২ নং এরিয়া কমিটির সম্পাদক দবিরুল ইসলাম । বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিদ্যুৎ তরফদার বলেন, গত লোকসভা নির্বাচনের মোদিজী যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তার একটিও ফলপ্রসূ করতে পারেনি। বলেছিলেন বছরে ২ কোটি বেকারের চাকুরী হবে। সবার খাতায় ১৫ লক্ষ টাকা করে জমা পড়বে।এরকম প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। চাকুরি দূরের কথা উল্টো ২ কোটি মানুষ কাজ হারিয়েছে। ব্যাংকে টাকা ঢোকেনি উল্টো টাকা গায়েব হয়ে যাচ্ছে। নোট বন্দী, জিএসটি করে মানুষকে বিপদে ফেলেছে। স্বাভাবিকভাবেই বিজেপিকে একটিও ভোট নয়। দবিরুল ইসলাম বলেন, আমাদের কর্মীরা প্রতিদিন বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে। এই আসনে আমরা বিপূল মার্জিনে জিতব। এদিন নন্দিগাছ, গুয়াবাড়ি, ধনীর হাট, লালবাজার এলাকায় প্রচার করা হয়।

28