Categories
রাজনীতি রাজ্য

অনাহারে মরছে মানুষ আর তখনি আহারে বাংলা উৎসব রাজ্যে। প্রতিবাদে গিয়ে গ্রেপ্তার সুজন চক্রবর্তী সহ অনেকে

২০/১১/১৮,ওয়েবডেস্ক,প্রতিবেদন: রাজ্যের জঙ্গলমহলে অনাহারে মানুষ মরছে, আর ঢাকঢোল পিটিয়ে ‘আহারে বাংলা’ উৎসবের আয়োজন করছে তৃণমূল সরকার। আর এই উৎসবের প্রতিবাদ করতে গিয়ে মঙ্গলবার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেন বাম পরিষদীয় দলনেতা ড: সুজন চক্রবর্তী। গত কিছুদিন ধরেই জঙ্গলমহলে অনাহারে ১৫দিনে ৮জন শবরের মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে তোলপাড় হয়েছে রাজ্য রাজনীতি। যদিও মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি নিজের নিয়ম মতোই তা অস্বীকার করে দাবি করেন যে কেউ নাকি অনাহারে মারা যায়নি! অপর দিকে সংবাদমাধ্যমে পরের দিনই জেলাশাসক, জেলা পুলিশ সুপারসহ জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা ওই গ্রামে ছুটে গিয়ে লঙ্গরখানা চালু করে। অন্যদিকে, রেশনে ‘পোকাধরা’ ২টাকা কেজি দরে পাওয়া চালও নজরে আসে সংবাদমাধ্যমের। শুধু পশ্চিম মেদিনীপুরই নয় বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বীরভূমসহ বিভিন্ন জেলায় অনাহারের একই খবর উঠে আসছে। রাজ্যের যখন এই অবস্থা, ঠিক তখনই রাজ্য সরকার আয়োজন করছে ‘আহারে বাংলা’ নামে উৎসবের। জ্যোতি বসু নগর (রাজারহাট-নিউটাউন)-এর সর্বত্র ছেয়ে গেছে মুখ্যমন্ত্রীর ছবিসম্বলিত এই উৎসবের বিশাল বিশাল হোর্ডিং। রাজারহাট-নিউটাউন অঞ্চলের গণসংগঠনগুলির যৌথ উদ্যোগে এদিন বিক্ষোভ দেখানো হয় নিউটাউন মেলা প্রাঙ্গণে। শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই কোনো রকম প্ররোচনা ছাড়াই পুলিশ গ্রেপ্তার করে সুজন চক্রবর্তী, শুভজিৎ দাশগুপ্তসহ আরো কয়েকজনকে। পুলিশ গ্রেপ্তার করতে গেলে বিক্ষোভকারীরা তীব্র প্রতিবাদ জানান। ধস্তাধ্বস্তি শুরু হয়। পুলিশের আক্রমণে আহত হয়েছেন সুজন চক্রবর্তীও। গ্রেপ্তার করে ওনাদের নিউটাউন থানায় নিয়ে এসেছে পুলিশ। বিক্ষোভকারীরাসহ আরো অনেকে এখন নিউটাউন থানার সামনে নতুন করে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন। বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন , যতক্ষণ পর্যন্ত না সুজন চক্রবর্তীসহ সমস্ত গ্রেপ্তার হওয়া নেতৃবৃন্দকে মুক্তি দেওয়া হবে ততক্ষণ বিক্ষোভ চলবে।

173

Leave a Reply