ওয়েব ডেস্ক,১২/১১/২০১৮:অচল পঞ্চায়েত , পরিসেবা শিকেয়
চোপড়া ও ইসলামপুর মহকুমার লক্ষ্মীপুরকে কেন্দ্র করে চোপড়ার মাঝিয়ালি , ঘিরনিগাঁও , দাসপাড়া সহ বিস্তীর্ণ এলাকা উত্তেজনাপ্রবণ হয়ে উঠেছে । চোপড়ার বিধায়ক হামিদুল রহমান বলেন , পুলিশ প্রশাসনের কাছে এলাকার সমস্ত দুষ্কৃতীর নামের তালিকা দিয়েছি । জানি না পুলিশ প্রশাসন এই বিষয়ে নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করছে কেন৷ মহকুমাশাসক মণীশ মিশ্র বলেন , পুলিশের কাজ পুলিশ করছে । শান্তি ফেরাতে এলাকায় সর্বদলীয় বৈঠক ডাকা যেতেই পারে । গণনার দিন বিরােধীদের গণনাকেন্দ্রের ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি । এরপর থেকে টানা তিন মাস গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে তালা ঝােলে । শে পর্যন্ত প্রশাসনিক তৎপরতায় দ্বিপাক্ষি বৈঠক হয় । এরপর ভােটগণনার তি মাস বাদে দপ্তর খােলা হয় । তখন জন প্রতিনিধিরা দপ্তরে ঢুকতে পারতেন । শুধু সরকারি কর্মীরা অফিস করতেন এভাবেই ছয় মাস ধরে জনপ্রতিনিধিদের কাউকেই পঞ্চায়েত কার্যালয়ে দেখা যায়নি । এরই মধ্যে রাজনৈতিক উত্তেজনার পার বাড়তে থাকে । দুই দলের মধ্যে বচসা সংঘর্ষে পরস্পরের বিরুদ্ধে বােমা – গুণি চালাবার অভিযােগ ওঠে । | কংগ্রসের অঞ্চল সভাপতি সহিদুল ইসলাম বলেন , “ গণনাকেন্দ্রে আমাদে এজেন্টদের তৃণমূল কর্মীরা ঢুকতে দেয়নি ওরা অবৈধভাবে জয় পেয়েছে । এ ব্যাপারে আদালতে মামলাও হয়েছে । প্রশাসনকে বলা হয়েছিল , মামলার রায় বের না হওয়া পর্যন্ত যাতে বাের্ড গঠন করা না হয় । কিন্তু প্রশাসন এতে কান দেয়নি । ‘ ব্লক কংগ্রেস সভাপতি অশােক রায় বলেন , “ লক্ষ্মীপুর সহ একাধিক গ্রাম পঞ্চায়েতে সাধারণ । মানুষ তৃণমূলের বাের্ডকে মানতে চাইছেন । সাধারণ মানুষের পরিসেবার স্বার্থে শীঘ্রই প্রশাসনকে প্রশাসক বসানাের দাবি | জানানাে হবে । স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা | জেলাপরিষদ সদস্য আজিজ আহমেদ বলেন , জনপ্রতিনিধিরা দপ্তরে ঢুকতে পারছেন না । কংগ্রেস আমাদের যেতে বাধা | দিচ্ছে । প্রশাসনের বিভিন্ন মহলে বিষয়টি | নিয়মিত জানানাে হচ্ছে । ‘ | অন্যদিকে , রবিবার লক্ষ্মীপুর গ্রাম | পঞ্চায়েত এলাকায় মৃত কংগ্রেস কর্মী মহম্মদ সমিরুলের বাড়িতে যান রায়গঞ্জের কংগ্রেস বিধায়ক মােহিত সেনগুপ্ত ।এদিন মােহিতবাবু মৃতের পরিবারের লােকেদের সঙ্গে কথা বলেন ।সেখান থেকে তিনি দলের আরেক কর্মী আবুল হােসেনের বাড়ি গিয়ে তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন ।৬ নভেম্বর মাটিগাড়া নকশালবাড়ির কংগ্রেস বিধায়ক শংকর মালাকারও স্থানীয় নন্দুগছ গ্রামে গিয়ে মৃতের পরিবারের লােকজনের সঙ্গে কথা বলেন ।এদিন মােহিতবাবু বলেন , মৃত দলীয় কর্মীর পরিবারের লােকজনের সঙ্গে কথা বলেছি ।এলাকার সমস্ত বিষয়েও খোঁজ নিয়েছি ।গােটা বিষয়টি নিয়ে দলের প্রদেশ সভাপতির কাছে পাঠানাে হচ্ছে ।পাশাপাশি মােহিত সেনগুপ্ত জানিয়েছেন , ১৭ নভেম্বর লক্ষ্মীপুরে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি সােমেন ।মিত্র ছাড়াও আবদুল মান্নান , প্রদীপ ভট্টাচার্য , দীপা দাশমুন্সীরা আসছেন ।

79