১১/১১/১৮,ওয়েবডেস্ক: আগামী ২৮শে নভেম্বর মধ্যপ্রদেশে নির্বাচন। ১১ই ডিসেম্বর গণনা।
ভোটারদের কাছে টানতে বিজেপির দেখানো পথেই হাঁটছে কংগ্রেস। শনিবারই প্রকাশিত হয়েছে মধ্যপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের ইস্তাহার। এই ইস্তাহারে হিন্দু ভোটারদের মন জয় করতে প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতে গোশালা নির্মাণের কথা ঘোষণা করেছে কংগ্রেস। এছাড়াও ক্ষমতায় এলে নর্মদা পরিক্রমা পথ, রাম পথ ও বিশেষ আধ্যাত্মিক কেন্দ্রও তৈরী করবে কংগ্রেস।

কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এই ইস্তাহার পত্রের নাম দেওয়া হয়েছে ‘বচন পত্র’ বা ‘প্রতিশ্রুতি পত্র’। যেখানে হিন্দু ভোট নিজেদের দখলে আনতে কংগ্রেস সমস্তরকম প্রতিশ্রুতির উল্লেখ করেছে।
স্বচ্ছ দুর্নীতি-মুক্ত সরকার গড়তে কংগ্রেস একটি পাবলিক অ্যাকাউন্টেবিলিটি বিল গঠন করবে।

কৃষকদের জন্য ইস্তাহারে যে সুযোগ-সুবিধার উল্লেখ রয়েছে সেগুলি হলো – কৃষকদের ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঝণ মকুবের পাশাপাশি কৃষিক্ষেত্রে ব্যবহৃত ইলেকট্রিসিটি বিলে ৫০ শতাংশ ছাড় দেওয়ার ঘোষণা। বিশেষ কিছু খাদ্যশষ্য উৎপাদনে বিশেষ বোনাস দেওয়া হবে সরকারের পক্ষ থেকে।

এছাড়াও কৃষিক্ষেত্রে পেট্রোল-ডিজেলের ব্যবহার কমানো কৃষকদের প্রতি লিটার দুধ বিক্রিতে অতিরিক্ত ৫ টাকা ভাতা দেওয়া হবে।

রাজ্যের যুবকদের কর্ম সংস্থানের জন্য ইস্তাহারে উল্লেখ রয়েছে বিবেকানন্দ যুব শক্তি মিশন চালু করার। এতে অংশগ্রহণ করলে প্রতি মাসে যুবকদের ৪,০০০ টাকা করে দেওয়া হবে। চাকরী ও বিনিয়োগে উৎসাহ দান করতে ১০,০০০ টাকা দেওয়া হবে এবং বিশেষ বৃত্তিও প্রদান করা হবে।

ব্যাপম কেলেঙ্কারি বন্ধ হবে এবং নতুন করে স্বচ্ছতার সাথে চাকরীতে নিয়োগ শুরু হবে। তথ্য ও প্রযুক্তিতে এক লক্ষ নতুন কর্ম সংস্থানেরও আশ্বাস দিয়েছে।
প্রাথমিক শিক্ষা থেকে পিএইচডি পর্যন্ত বিনামূল্যে মেয়েদের শিক্ষা দেওয়া হবে। প্রত্যেক মহিলাকে স্মার্ট ফোন, স্মার্টকার্ড, হেল্থ কার্ড দেওয়া হবে। প্রত্যেক যুবতীকে বিয়ে করার জন্য ৫১,০০০ টাকা দেওয়া হবে। কলেজ ছাত্রীদের একটি করে দুচাকার গাড়ি দেওয়া হবে। গ্রাম্য মহিলাদের স্বাবলম্বী করতে একটি করে সেলাই মেশিন ও বিনামূল্যে প্রশিক্ষণও দেওয়া হবে।

ইস্তাহারে উল্লেখিত অন্যান্য মুখ্য প্রতিশ্রুতিগুলি হলো –

মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে ‘রাইট টু শেল্টার’ আইন অনুযায়ী প্রত্যেক গৃহহীনকে ২.৫ লাখ টাকা ও ৪৫০ বর্গফুট জায়গা দেবে বাড়ী তৈরীর জন্য।

‘নতুন ভোর’ প্রকল্পে গরীব ও শ্রমিক পরিবারের জন্য ১০০ টাকায় রান্নার গ্যাস দেওয়া হবে।
এক ব্যক্তি, এক পেনশন’-প্রকল্পের আওতায় পেনশন ৩০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০০০ টাকা করা হয়েছে।

দ্বাদশ শ্রেণীর বোর্ড পরীক্ষায় ৭০ শতাংশ নম্বর পাওয়া ছাত্রছাত্রীদের বিনামূল্যে একটি ল্যাপটপ দেওয়া হবে।

ঝাড়ুদার ও নর্দমা পরিষ্কারকরা ২৫ লাখ টাকার জীবনবীমা করার বিশেষ সুযোগ পাবেন।

২৪x৭ রাজ্যের সর্বত্র বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রদান করা হবে।

আইনজীবী ও সাংবাদিকদের বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবে সরকার। একটানা ২৫ বছর কাজ করলে বা ৬০ বছর পর্যন্ত কাজ করলে ১০,০০০ টাকা করে প্রতি মাসে দেওয়া হবে সাংবাদিক ও আইনজীবীদের।

রাজ্যে চারটি নতুন মেডিক্যাল কলেজ তৈরী হবে। আদিবাসী এলাকাতে কাজ করলে ডাক্তার ও নার্সদের জন্য একটি বিশেষ ভাতার ঘোষণা রয়েছে ইস্তাহারে।

ইস্তাহার প্রকাশের সময় এই দিনটিকে ঐতিহাসিক দিন বলে উল্লেখ করে কংগ্রেস নেতা তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী কমলনাথ বলেছেন, ” আমরা প্রত্যেকের সাথে কথা বলে এই ইস্তাহার তৈরী করেছি। বিজেপি জনগণকে ‘জুমলা'(মিথ্যে) প্রতিশ্রুতি দেয়। ১২ই ডিসেম্বরের পর থেকে মধ্যপ্রদেশের জনগণ উন্নতির নতুন দিশা পাবে।”

29