৩১/১০/১৮,ওয়েবডেস্কঃ

রোজগারের আশায় ভিন দেশে গিয়ে অকথ্য অত্যাচারের সম্মুখীন হলো ১২ জন যুবক।পেশায় স্বর্ণ শিল্পীও ওই যুবকদের কাজের টোপ দিয়ে ইরানে নিয়ে গিয়েছিল গিয়াসউদ্দিন মালিক।লিপার্তালা নামের একটি সংস্থার হয়ে প্রথমে কাজ শুরু করে বাংলা থেকে যাওয়া ২২ জন যুবক।কিন্তু একমাসের মধ্যে কাজ না জানার কারণ দেখিয়ে ১২ জন কারি গড় কে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়।রেখে দেয়া হয় ১২ জনকে।ইতিমধ্যে ইরানের মুদ্রার দাম কমে গেলে বাকি শিল্পীদের টাকার অভাব দেখিয়ে বিনা বেতনে ওখানেই রেখে দেয় ইরানি সংস্থা।ফেরার আশা ক্রমশ ক্ষীন হতে থাকায় ভিডিও কল,ভয়েস মেসেজ এ নিজেদের দুঃসহ পরিস্থিতির কথা জানান কারিগররা।২৩ শে অক্টোবর এর সেই ভিডিও ফুটেজ ই বাঁচিয়ে দিল ১২জনের জীবন।বুধবার সকালে কলকাতা বিমান বন্দরে ফিরে তারা জানান ইরান বাসের শেষ ২০ দিন তারা কার্যত অভুক্তই ছিলেন।একটা ঘরে কোনোরকমে তাদের থাকতে দেয়া হত।তাদের পাসপোর্ট,ভিসা ,ভোটার কার্ড বাজেয়াপ্ত করে অসহায় করে দেয়া হয়।ইরানে ভারতীয় দূতাবাসের হস্তক্ষেপে অক্ষত অবস্থায় তারা দেশে ফিরতে পারলেন
তবে ট্যুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে কেন ২২যেন বাঙালিকে ইরানে নিয়ে যাওয়া হলো তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

56