২৬/১০/১৮,ওয়েবডেস্ক: আজ সারা দেশে বিভিন্ন রাজ্যে এ দিন সিবিআই দফতর ঘেরাও-এ নামে কংগ্রেস। ২৪ তারিখ রাতেই এআইসিসি-র তরফে ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছিল ২৬ তারিখের কর্মসূচি।
কংগ্রেস কর্মসূচি নিয়েছিল দিল্লির সদর দফতর-সহ দেশের সমস্ত রাজ্যে সিবিআই দফতর ঘেরাও করবে তারা। সেই কর্মসূচিতেই এ দিন সনিয়া-পুত্রকে দেখা গেল অন্য মেজাজে। দিল্লির
সিবিআই দফতরের প্রায় ৫০০ মিটার দূরে পুলিশের ব্যারিকেড আটকে দিল কংগ্রেসের বিক্ষোভ মিছিল। নেতৃত্বে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। পিছনে কয়েক হাজার কর্মী। সামনে নেতা রাহুল। উঠে বসলেন ব্যারিকেডের উপর। আর নয়া দিল্লির লোধি রোড থেকে কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকরা আকাশ কাঁপানো স্লোগান তুললেন -‘নরেন্দ্র মোদী চোর হ্যায়।’

“রাফায়েল তদন্ত থেকে নিজেকে বাঁচাতেই সিবিআই ডিরেক্টরকে মধ্যরাতে সরিয়ে দিয়েছেন মোদীজি।” এ দিনের বিক্ষোভ থেকেও রাহুল অভিযোগ করেন। বিক্ষোভ থেকে প্রতীকী গ্রেফতার বরণ করেন কংগ্রেস সভাপতি। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় লোধি কলোনি থানায়।
দিল্লিতে বেশ কয়েকজন কংগ্রেস কর্মীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। চণ্ডীগড়ে কংগ্রেসের বিক্ষোভে জলকামান চালায় পুলিশ। বিক্ষোভ হয় লখনউ, পাটনা, চেন্নাই, বেঙ্গালুরু, গুয়াহাটি, জয়পুর-সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্যে সিবিআই দফতরের সামনে। দীপাবলী মিটলেই ভোট প্রক্রিয়া শুরু দেশের পাঁচ রাজ্যে। সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলিতেও এ দিন জোর কদমে বিক্ষোভ দেখাল কংগ্রেস। রাজনৈতিক তথ্যাভিজ্ঞ মহলের মতে, সিবিআইয়ের গৃহযুদ্ধ কাণ্ডে মুখ পুড়েছে বিজেপি-র। আর এই মওকাকেই কাজে লাগিয়ে তীব্র বিরোধী আন্দোলন শানাচ্ছে কংগ্রেস।

32