৭/১০/১৮,ওয়েবডেস্কঃসাম্প্রতিকসময়ের এক বহুল আলোচিত বিষয়, ‘শিশু নিগ্রহের’ একটি অভিযোগকে কেন্দ্র করে উত্তাল হলো রায়গঞ্জ। এখনো অবধি সংগৃহিত খবরের ভিত্তিতে জানা গেছে, রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে স্কুল বাসেরই এক কর্মচারীর নিগ্রহ করার অভিযোগে গতকাল রাতে রায়গঞ্জ মহিলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। পুলিশ ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত কে আটক করে এবিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে। বাচ্চাটির পরিবারের তরফে পাওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত এবং নিগৃহীত ছাত্রীটির মেডিক্যাল টেস্ট করানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত ওই বেসরকারী স্কুলের রায়গঞ্জ শাখায় ২০১৩ সাল থেকে পঠনপাঠন চালু হয়। এযাবৎ এরকম কোন ঘটনা কখনো ঘটেনি।বর্তমানে রায়গঞ্জ এবং সংলগ্ন এলাকার প্রচুর ছেলেমেয়ে সেই স্কুলে পড়ে।

পুলিশ সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী, অভিযুক্ত ব্যক্তি স্কুলের বাচ্চাদেরই আনা নেওয়ার জন্য একটি বাসের খালাসীর কাজ করেন। তার বাড়ি রায়গঞ্জ ব্লকের রূপাহারে। গতকাল অভিযোগকারিনি বাচ্চাটিকে নির্দিষ্ট স্টপেজে না নামিয়ে বাসটি এগিয়ে যাওয়ায় বাচ্চার মা বাসটিকে অনুসরণ করেন এবং পরবর্তী স্টপে তাঁর মেয়েকে নামিয়ে নেবার পর বাড়ি ফিরে বাচ্চাটি তার নিগ্রহের কথা মা কে জানায়। তারই বয়ানের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ এবিষয়ে শিশুটির পাশে দাঁড়ানোর পাশাপাশি প্রশাসনের কাছে ঘটনার একটি পূর্ণাঙ্গ নিরপেক্ষ তদন্ত চেয়েছেন বলে জানিয়েছেন।

শহরের একটা নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এধরণের একটি অভিযোগ ওঠায় ইতিমধ্যেই সাধারণ মানুষ এবং অভিভাবক মহলে বিপুল চাঞ্চল্য এবং উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। সকলেই দ্রুত সঠিক ঘটনা প্রকাশ সহ দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি ও জানাচ্ছেন প্রশাসনের কাছে।

35