২/১০/১৮,কুলিক ইনফোলাইনঃ

বাংলা কবিতায় মহাত্মা

কলমে
পুরুষোত্তম সিংহ

পর্ব ১
আজ জাতির জনক গান্ধীজির জন্মদিন। ভারতের জাতীয়তাবাদের ইতিহাসে তাঁর অবদান সম্পর্কে আমরা সবাই সচেতন। বাংলা ও বাঙালি নিজের আপন করে নিয়েছে গান্ধীজিকে। রবীন্দ্রনাথ ও গান্ধীজির সম্পর্কের কথা আমরা সবাই অবগত। এমনকি বাংলা উপন্যাসেও গান্ধীজির কথা এসেছে। আজ আমরা দেখবো বাঙালি কবিরা কিভাবে কবিতায় গান্ধীজিকে স্মরণ করেছেন।
এ প্রসঙ্গে প্রথমেই মনে আসে সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের কথা। সত্যেন্দ্রনাথের বন্ধু প্রীতি ছিল অসম্ভব রকমের ভালো।তাঁর কবিতায় বিবেকানন্দ, রবীন্দ্রনাথ, নিবেদিতা ও অরবিন্দ সহ বহু মনীষীদের কথা উঠে এসেছে। সত্যেন্দ্রনাথ ‘ গান্ধীজি’ কবিতায় গান্ধীর জীবনের জয়গাথা রচনা করেছেন। জাতির জীবনে গান্ধীজির ত্যাগ তিতিক্ষা ও জীবনবীক্ষার এক ভাষ্য রচনা করেন। গান্ধীজিকে শ্রদ্ধা জানান এভাবে -” অহিংসা যার পরম সাধনা হিংসা সেবিত বাসে/ আসন যাহার বুদ্ধের কোলে, টলষ্টয়ের পাশে”। কবি সক্রেটিস সহ সম্রাট দানিয়েলের সঙ্গে গান্ধীর তুলনা করেন। সমস্ত ব্যঙ্গ বিদ্রুপের উর্ধ্বে গান্ধীর আহবানে আজ সারা দিয়েছে ত্রিশ কোটি মানুষ। সমস্ত জাতি ধর্মের উর্ধ্বে আজ মানুষ গান্ধীজিকে আপন করে নিয়েছে – ” তার আগমনী গা রে ও খেয়ালী! গৌড়বঙ্গময়/ গাও মহাত্মা পুরুষোত্তম গান্ধির জয়। “

13