২৬/০৯/১৮,ওয়েবডেস্কঃসাম্প্রতিক পঞ্চায়েত নির্বাচনে চৌত্রিশ শতাংশ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় সংক্রান্ত মামলায় সুপ্রিম কোর্টে কোনো বিচার না পাওয়া যাওয়াই সাধারণ মানুষের মত আমিও মর্মাহত। রাজকুমার হত্যার বিচার চাই মঞ্চ আয়োজিত এক কনভেনশনে একথা বলেন জাস্টিস অশোক গাঙ্গুলি। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ত্রিগুনা সেন মঞ্চে এই কনভেনশনে তিনি আরো বলেন রাজকুমার রায় নির্বাচন কমিশন দ্বারা নিযুক্ত প্রিসাইডিং অফিসার ছিলেন। তথাপি তিনি বুথ থেকে অপহৃত হন এবং তার হত্যা করা হয়। আশ্চর্যজনক ভাবে নির্বাচন কমিশনের এ বিষয়ে কোনো হেলদোল নেই। মানুষের এখন একমাত্র ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছে কোর্ট। এই প্রসঙ্গে তিনি সুপ্রিম কোর্টের উপরোক্ত রায়ের উল্লেখ করেন। এদিন উত্তর বঙ্গে প্রিসাইডিং অফিসার হত্যার বিচার চেয়ে গড়ে ওঠা আন্দোলন যে ভাবে রাজধানীতে ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ মঞ্চ নিয়েছে তার জন্য আন্দোলনকারীদের বিভিন্ন বিশিষ্ট জনেরা অভিনন্দিত করেন। গতকালের সেই কনভেনশনে উপস্থিত থেকে আন্দোলনের সাথে সহমর্মিতা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞানী অশোক নাথ বসু, কবি মন্দাক্রান্তা সেন, শিল্পী সমীর আইচ, নন্দিনী মুখোপাধ্যায়, অম্বিকেশ মহাপাত্র, কুমার রানা, মইদুল ইসলাম, বরুন বিশ্বাসের দিদি প্রমীলা বিশ্বাস, বিশিষ্ট আইনজীবি বিকাশ ভট্টাচার্য অসুস্থ থাকায় তিনি উপস্থিত হতে না পারলেও তার বার্তা পাঠ করা হয়। রায়গঞ্জের সাংসদ মহঃ সেলিম ও অধ্যাপক ওমপ্রকাশ প্রথম থেকেই উপস্থিত থাকলেও তারা মঞ্চে আসতে না চাইলেও আয়োজক দের অনুরোধ মেনে তারা শেষে বক্তব্য রাখেন। মহঃ সেলিম জানান রাজকুমার এর লাশ এর মত বিচার পাওয়ার আশায় ইসলাম পুরে পুলিশের গুলিতে খুন ছাত্ররাও কবরে শুয়ে আছে বিচারের আশায়। আমরা যদি এখনি প্রতিবাদ করতে না পারি তবে ভবিষ্যতে শ্মশান উঠিয়ে দিয়ে জাগায় জাগায় মর্গ তৈরি করতে হবে। যাতে লাশেরাও কবে বিচার পাওয়া যাবে সেই সুদিনের আশায় অপেক্ষা করতে পারে। রাজকুমার হত্যার বিচার চাই আন্দোলনে তিনি নিজেকেও সংযুক্ত করছেন বলে জানান।

11