৩০/০৮/১৮, ওয়েবডেস্কঃএশিয়ান গেমস এ ২০০ মিটার ও ১০০ মিটার দৌড়ে রুপা জয়ী উড়িষ্যার দ্যুতি চন্দ্ আজ দেশের গর্ব।কিন্তু এই সাফল্য এসেছে এক দীর্ঘ লড়াই এর মাধ্যমে।লড়াই নিজের সাথে,সমাজের কুপমুন্ডকতার সাথে,আইনের সাথে।২০১৪ সালে কমন ওয়েলত গেমস এ মেয়েটির যাওয়া যখন চূড়ান্ত ,তখন ই সে খবর পায় তাকে অংশগ্রহণ থেকে বাদ দিয়েছে অথলেটিকে ফ্রেডারেশন অফ ইন্ডিয়া।তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তার hyperandrogenism আছে।সে বছর এশিয়ান গেমস এও যাওয়া হয় না তার।এই hyperandrogenism বিষয় টা কি?বিষয়টি সবিশেষ কিছুই না।নারীর শরীরে পুরুষ হরমোনের আধিক্যই hyperandrogenism.সুতরাং দ্যুতি হলেও হতে পারেন পুরুষ, বৃহন্নলা,বা রূপান্তরিত? দুঃখের বিষয় দ্যুতি এইসব কিছুই জানতেন না।তিনি ডোপিং করেন নি,পুরুষ হয়ে নারীর ছদবেশও ধরেন নি,তবে কেন এই বঞ্চনা?কেন মেয়ে হয়ে আজন্ম লালিত দ্যুতি র সামনে আজ এতবড় অস্তিত্বের সংকট? মানব শরীরে হরমোনাল বা ক্রমজমাল সমস্যা থাকলে দোষটা কি ব্যাক্তিগত? অলিম্পিক কিন্তু ২০০৬ সালে রূপান্তরিত নারী বা পুরুষকে ও খেলায় অংশগ্রহণ এর সুযোগ দিয়েছে। তবে ? দ্যুতি র লড়াই তে তার সাথে সামিল হন অস্ট্রেলিয়ান ইন্টারসেক্স ল ইয়ার রা।শেষ পর্যন্ত মহিলাদের খেলার ক্ষেত্রে ডাক্তারি পরীক্ষায় টেস্টোস্টেরনের মাত্রাকে বহিষ্কারের কারণ হিসেবে নাকচ করা হয়।জয় হয় দ্যুতি র।জিতে যায় প্রকৃতির খেয়ালে নারী পুরুষের দেহের বিচ্যুতি তে নিরপরাধ মানুষ।তারপর দ্যুতির এই জয়।এই ফিরে আসা।

6